kalerkantho


কী দেব তোমায়...

ভালোবাসা দিবসে রুচিসম্মত ও ব্যতিক্রমী উপহার দিয়ে সহজেই প্রিয়জনের মন জয় করা যায়। সে রকমই কিছু ব্যক্তিক্রমী উপহার সামগ্রীর খোঁজ দিলেন পিন্টু রঞ্জন অর্ক

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কী দেব তোমায়...

কী যে লিখি

চিঠি লিখব ও লিখব তোমাকে/পড়ে জবাব দিয়ো গো আমাকে—শুধু গানে নয়, বাস্তবে একসময় চিঠি লেখার খুব চল ছিল। আজকাল ফেসবুক-ম্যাসেঞ্জার, ই-মেইল কিংবা বড়জোড় এসএমএসে হয় ভাব বিনিময়। কিন্তু হলুদ খামে ভরা চিঠির আবেদন এখনো ফুরোয়নি। এর পরতে পরতে থাকে ভালোলাগার অনুভূতি। ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে প্রিয়জনকে উদ্দেশ করে লিখে ফেলুন না একপ্রস্থ! খামটি আপনার হাতে তৈরি হলে তো কথাই নেই। যাত্রা, ভার্টিকেল, আড়ং, আইডিয়াল প্রডাক্টসের শোরুমেও পাবেন নানা রং ও নকশার খাম। ৫০ থেকে ১৮০ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন।

 

রঙিন খাতা-ডায়েরি

সাধারণত খাতার পাতা সাদাই হয়। কিন্তু তা যদি হয় লাল, হলুদ বা অন্য কোনো রঙের? এমন হরেক রকম খাতা ও ডায়েরি পাবেন আজিজ সুপার মার্কেটের গ্রাসহপার্সে।

এসব খাতা বা ডায়েরিতে লেখার জন্য সাদা, লালসহ বিভিন্ন কালির কলমও পাওয়া যায়। ধরুন, আপনার প্রিয়জন হুমায়ূন আহমেদের ভক্ত। তাহলে তাকে উপহার দিতে পারেন হলুদরঙা একটি খাতা বা ডায়েরি। চামড়া, কাপড়ের মলাট বা রেক্সিনের মলাটের ভেতর ফোম দেওয়া ডায়েরি এখন বেশ চলছে। ছবিসহ বাহারি রঙের হ্যান্ডমেইড পেপারের ডায়েরিগুলোতে পাটের জরি, পুঁতি, জরির সুতা দিয়ে বোনা বৈচিত্র্যময় মলাট পাবেন। খাতার পৃষ্ঠা ও আকৃতির ওপর দাম নির্ভর করে। ১২০ থেকে ৬৫০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন এগুলো। কলম পাবেন ২০ টাকা থেকে ১৮০ টাকার মধ্যে।

 

বইবন্ধু

বই মানুষের সবচেয়ে ভালো বন্ধু। প্রিয়জনকে বই উপহার দিতে পারেন। তার আগে কৌশলে জেনে নিন কোন বইগুলো তার সংগ্রহে বা পড়া নেই। বইমেলায় গিয়েও বই কিনতে পারেন।

রকমারি ডটকম, সেই বই ডটকমসহ বেশ কিছু অনলাইন প্রতিষ্ঠানও এখন বাসায় বই পৌঁছে দেয়। চমক দিতে চাইলে প্রিয়জনের ঠিকানা দিয়ে তাদের কাছেও অর্ডার দিতে পারেন।

 

হাতের পরশ লেগে থাকুক

প্রিয়জনের জন্য উপহার যদি নিজ হাতে তৈরি করা যায়, তাহলে কেনা উপহারের চেয়ে ব্যতিক্রমী হবে সেটা। প্রিয়জনও নিশ্চয়ই মুগ্ধ হবে। হাতে বানানো কার্ড দিয়ে চমকে দিতে পারেন প্রিয় মানুষটিকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্রী রোমানা আহমেদ বললেন, ‘নিজের হাতে তৈরি কার্ডের আবেদনটাই অন্য রকম। তবে কার্ডের নকশা ও উপাদানে নিজস্বতা থাকতে হবে।’ রঙিন কাগজ, কাঁচি, স্কেল, আঠা ও পেনসিল হাতের কাছে থাকলেই ঝটপট বানিয়ে ফেলতে পারেন ভালোবাসা দিবসের কার্ড। যেকোনো স্টেশনারির দোকান থেকেই এগুলো সংগ্রহ করতে পারবেন। ইউটিউবে কার্ড বানানোর টিউটোরিয়াল পাবেন। সেগুলো দেখে নিতে পারেন। ভালোবাসা দিবসে হাতে তৈরি কেক বানানোর পরামর্শ দিলেন রন্ধনবিদ উম্মাহ মোস্তফা। বললেন, ‘হার্টের আকৃতির চমৎকার একটা কেক বানিয়েও পরিবেশন করতে পারেন প্রিয় মানুষটির কাছে।’

 

মার্বেল পাথরের ভাস্কর্য

পাথর খোদাই ভাস্কর্যেরও বেশ চল এখন। প্রিয়জনকে চমকে দিতে পারেন পাথরের এসব ভাস্কর্য দিয়ে। পাবেন আজিজ সুপার মার্কেটের মর্মর নামের দোকানে। সাদা ও কালো দুটি রঙে পাওয়া যায়। দামও হাতের নাগালে। ৫০ থেকে দেড় হাজার টাকার মধ্যে।

 

অন্যান্য

মাটি ও কাঠের তৈরি ফটোফ্রেমের চল অনেক দিন ধরেই। এখন বাঁশ ও কাগজের তৈরি বাহারি ফটোফ্রেমও বেশ চলছে। আড়ং, যাত্রায় এসব পেয়ে যাবেন। এছাড়া দোয়েল চত্বর, ঢাকা কলেজের সামনের ফুটপাতেও মিলবে। দাম পড়বে ৫০ থেকে সাড়ে চার হাজার টাকার মধ্যে।

গরম চা-কফি ঢাললেই মগে ভেসে উঠবে প্রিয়জনের ছবি—বাজারে এখন এমন মগ পাওয়া যায়। এগুলো ম্যাজিক মগ নামে পরিচিত।

এ ছাড়া মগের গায়ে পছন্দমতো ছবিও প্রিন্ট করা যায়। আজিজ সুপার মার্কেট, কাঁটাবন মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি ও এলিফ্যান্ট রোডের বিভিন্ন দোকানে এ ধরনের মগ পাবেন। একেকটি ৫০০ থেকে ৬৫০ টাকার মধ্যে। শুভেচ্ছা জানানোর জন্য ফুলের আবেদন চিরন্তন। দিতে পারেন চকোলেটও।


মন্তব্য