kalerkantho


দেশ পরিচিতি

১৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০



দেশ পরিচিতি

তানজানিয়া

পূর্ব আফ্রিকার সার্বভৌম দেশ তানজানিয়া। এর উত্তরে কেনিয়া ও উগান্ডা, পশ্চিমে রুয়ান্ডা, বুরুন্ডি ও কঙ্গো প্রজাতন্ত্র, দক্ষিণে জাম্বিয়া, মালাবি ও মুজাম্বিক এবং পূর্বে ভারত মহাসাগর। আফ্রিকার সর্ববৃহৎ পর্বত কিলিমানজারো তানজানিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত।

প্রাক-ঐতিহাসিককালে দক্ষিণ ইথিওপিয়া থেকে এখানে এসে বসতি গড়ে চুসিটিকভাষী লোকেরা। এটি ২০০০ থেকে ৪০০০ বছর আগের কথা। তানজানিয়ায় ইউরোপীয় উপনিবেশ শুরু হয় উনবিংশ শতাব্দীর শেষ ভাগে। জার্মানি এসে জার্মান পূর্ব আফ্রিকা গঠন করে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর এটি ব্রিটিশ শাসনের অধীনে চলে যায়। ওই সময় মূল ভূখণ্ড তানজানিকা ও জানজিবার দ্বীপপুঞ্জ নামে দুটি প্রশাসনিক এলাকা হিসেবে পরিচালিত হতো। এ দুটি অংশ যথাক্রমে স্বাধীনতা পায় ১৯৬১ ও ১৯৬৩ সালে। সংযুক্ত তানজানিয়া প্রজাতন্ত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ১৯৬৪ সালের এপ্রিলে।

তানজানিয়ায় শতাধিক ভিন্ন ভাষাভাষী রয়েছে। অর্থনৈতিকভাবে তানজানিয়ার অবস্থা খুব একটা উন্নত নয়। তাদের অর্থনৈতিক আয়ের মূল ভিত্তি কৃষি, পর্যটন, টেলিকমিউনিকেশন ও ব্যাংকিং খাত।

একনজরে

পুরো নাম : ইউনাইটেড রিপাবলিক অব তানজানিয়া।

রাজধানী : দোদোমা।

সবচেয়ে বড় শহর : দার এস সালাম।

দাপ্তরিক ভাষা : ইংরেজি ও সুয়াহিলি।

জাতীয় ভাষা : সুয়াহিলি।

ধর্ম : খ্রিস্টান ৬১.৪ শতাংশ, মুসলমান ৩৫.২ শতাংশ।

সরকার পদ্ধতি : ইউনিটারি প্রেসিডেনশিয়াল কনস্টিটিউশনাল সোশ্যালিস্ট রিপাবলিক।

প্রেসিডেন্ট : জন পমবে মানুফুলি।

আইনসভা : পার্লামেন্ট।

আয়তন : ৯ লাখ ৪৭ হাজার ৩০৩ বর্গকিলোমিটার।

জনসংখ্যা : পাঁচ কোটি ৫৫ লাখ ৭২ হাজার ২০১, ঘনত্ব : প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৪৭.৫ জন।

জিডিপি : মোট ১৫৮.৭৫৮ বিলিয়ন ডলার, মাথাপিছু তিন হাজার ৫৩৩ ডলার।

মুদ্রা : তানজানিয়ান শিলিং।

জাতিসংঘে যোগদান : ১৯৬১ সালে।

 

 


মন্তব্য