kalerkantho


ফ্যাশন

সময়টা দেখে নাও

পাশের বন্ধুটি বলল, দোস্ত কয়টা বাজে? ঘড়ি না থাকায় উত্তর দিতে পারলে না? ভাবছ, ঘড়ি একটা এবার কিনতেই হবে? সময় দেখার পাশাপাশি ফ্যাশনটাও যেন রক্ষা হয়, সে সমাধান দিচ্ছেন জুবায়ের আহম্মেদ



সময়টা দেখে নাও

মডেল : নাহিদ

ঘড়ি কেনার বেলায় প্রথম পছন্দ হওয়া উচিত মেকানিক্যাল মুভমেন্টের ঘড়ি। পানিরোধক কি না সেটিও দেখে নিতে পারো। ঘড়ির লেন্স মিনারেল ক্রিস্টাল বা সেফায়ার ক্রিস্টাল হলে ভালো, তা না হলে দাগ পড়তে পারে। গোল লেন্স প্রাধান্য দেবে।

সারা বাংলাদেশেই ঘড়ি পাওয়া যাবে। তবে নামিদামি ব্র্যান্ডের জন্য আসতে পারো রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, সীমান্ত স্কয়ার, নিউ মার্কেট, বায়তুল মোকাররম, ইস্টার্ন প্লাজা কিংবা এলিফ্যান্ট রোডে। আজকাল ই-কমার্স সাইটগুলো থেকেও অর্ডার দিতে পারো। তবে সাবধান। ছবিতে যেটা দেখা যায়, হুবহু সেটা পাওয়া যায় না—এমন ই-কমার্স সাইটের বিরুদ্ধেই শোনা যায় এমন অভিযোগ।

ফাস্টট্র্যাক, সিকো, গুচ্চি, ওমেগা, টাইটান, টাইমেক্স, র‌্যাডো, সিটিজেন, রোলেক্স, ক্যাসিওসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ঘড়ি পাওয়া যাবে শোরুমে। এসব ব্র্যান্ডের ফ্যাশনেবল ঘড়ি কিনতে বাজেট রাখতে হবে তিন হাজার টাকার বেশি। নন-ব্র্যান্ডের ভালো ঘড়ি পাবে ৩০০-১২০০ টাকার মধ্যে। মেয়েদের ঘড়ির মধ্যে লোকাল ব্র্যান্ডের ঘড়ির দাম ৩৫০-১২০০ টাকা। মোটামুটি দামি ব্র্যান্ডের কিনতে চাইলে দুই থেকে ১০ হাজার টাকা বাজেট রাখতে হবে।

এলইডিযুক্ত ডিজিটাল হাতঘড়িও এখন টিনএজারদের পছন্দ। চীনা প্রতিষ্ঠান শাওমির ‘মি ব্যান্ড’ হাতঘড়ির দাম ১৮০০ টাকা।

বাজারে মেটাল, চামড়া, চেইন, রিবনের ব্রেসলেট—এমন অনেক ফেন্সি ঘড়ি পাওয়া যায়। চায়নিজ ফেন্সি ঘড়ির মধ্যে হাইয়ুকু, টেস, ভিকসে ব্র্যান্ডগুলো বেশ জনপ্রিয়।

 

সিম সাপোর্টেড স্মার্ট ওয়াচটির দাম ১৪৫০ টাকা। একটি মেমোরি কার্ড লাগানো যায়। ব্লুটুথ, ক্যালকুলেটর, ব্রাউজার, রেকর্ডার, ক্লক ডিসপ্লে, নোটিফিকেশনসহ অন্যান্য ফিচার রয়েছে।

ফাস্টট্র্যাক ব্র্যান্ডের মেয়েদের এই ঘড়িটির দাম ৩৭০০ টাকা। লেদারের বেল্ট। ওজন ১৫৯ গ্রাম। ৩০ মিটার গভীরতা পর্যন্ত পানিরোধী এটি।

নেভিফোর্স ব্র্যান্ডের ঘড়িটির দাম ২৮৫০ টাকা। দেখতে ফ্যাশনেবল, আর্টিফিশিয়াল লেদার দিয়ে তৈরি। সঙ্গে আছে এক বছরের গ্যারান্টি।


মন্তব্য