kalerkantho


সোশ্যাল মিডিয়ার ভাষা

রাতুল ব্লগ, ফেসবুক, টুইটারসহ নানা সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করে। একদিন সে ঠিক করল, সোশ্যাল মিডিয়ায় সে যেভাবে কমেন্ট করে, দৈনন্দিন জীবনে সেই ভাষা প্রয়োগ করবে। লেখা জাহাঙ্গীর আলম

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



সোশ্যাল মিডিয়ার ভাষা

ঘুম থেকে উঠে নাশতার টেবিলে বসে রাতুল নাশতার সুঘ্রাণ নিতে নিতে বলল, ‘প্রথমেই প্লাস! এইবার খাওয়া শুরু করি। ’

মা বললেন, ‘প্রতিদিন ডিম ভাজি খাস! আজকে একটু সবজি খা!’

রাতুল কিছুক্ষণ চিন্তা করে বলল, ‘সহমত! দাও সবজি দাও!’

নাশতা শেষ করেই বাবার দিকে তাকিয়ে বলল—‘বাবা, তোমার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

আমার পকেট খরচের জন্য এই সপ্তাহ থিকা ১০০ টাকা বেশি দিতে হবে। ’

বাবা বললেন, ‘কেন?’

রাতুল পত্রিকাটা হাতে নিয়ে বলল, ‘লোল! রিকশা-বাসের ভাড়া বাড়ছে। এই যে রেফারেন্সের লিংকসহ। ’

বাবা বুঝতে না পেরে পকেট থেকে ৫০ টাকা বের করে দিয়ে বললেন, ‘বাকিটা কালকে নিস। ’

রাতুল দ্রুত পকেট থেকে মোবাইল বের করে ছবি তুলতে তুলতে বলল, ‘স্ক্রিনশট নিয়ে রাখলাম। পরে পিছলানোর কোনো সুযোগ থাকবে না। ’

ছেলের এমন আচরণ দেখে বাবা পুরো টাকাটাই দিয়ে দিলেন। রাতুল টাকা হাতে নিয়ে বলল, ‘উত্তম! টাকা প্রিয়তে নিয়ে রাখলাম!’

নিচে নামতেই দারোয়ানের সঙ্গে দেখা। সে বলল—‘ভাইয়া, মিলি আপা তো আপনার কথা জিজ্ঞেস করল!’

রাতুল বলল, ‘কস্কি মোমিন! লোল।

তাহলে তো এখন থেকে ওরে অনুসরণ করা লাগে!’

দারোয়ান বলে, ‘কী বললেন, ভাইয়া?’

দারোয়ানের উত্তর না দিয়েই ভার্সিটির পথে এগোলো রাতুল।

ক্লাসে গিয়ে দেখে, মতিন স্যারের ক্লাস নিতে আসছে বিশ্বজিৎ স্যার। রাতুল মনে মনে বলল, ‘এডুকেশন সফটওয়্যার দেখছি চেঞ্জ। আসল সফটওয়্যার না আসা পর্যন্ত নো ক্লাস!’

সন্ধ্যায় বাসার সবার সঙ্গে টিভি দেখতে বসল রাতুল। মাকে বলল, ‘খবরের চ্যানেলটা দাও তো। ’

মা বললেন, ‘সিরিয়াল শেষ হয়ে নিক। তখন দেখিস। ’

রাতুল বলল, ‘তোমার জন্য একটা অ্যাংরি ইমো থাকল মা। ’

মা কিছু না বুঝে সিরিয়াল দেখতে লাগলেন।

রাতের খাবার খেতে বসে রাতুল বলল, ‘মাংসটা ভালোমতো সিদ্ধ হয় নাই। ’

মা বললেন, ‘আমি বাইরে যাওয়ায় বুয়া রান্না করছে আজকে। ’

রাতুল উত্তেজিত হয়ে বলল, ‘মা, তুমি মডারেশনে এমন খামখেয়ালি করলে তো কিচেন-ডায়নিংয়ের কোয়ালিটি ঠিক থাকবে না!’

টেবিলে বসা অন্য সবার চেহারা দেখে মনে হলো, সবাই একটু মন খারাপ করেছে। রাতুল তখন উঠে মাকে একটা চুমু দিয়ে বলল, ‘আরে আমি তো স্যাটায়ার করছিলাম। মনে করছিলাম, তোমার অ্যান্টেনা উঁচা আছে। ব্যাপারটা তোমার মাথার ওপর দিয়া যাবে বুঝি নাই! ওকে, শুভরাত্রি। আমি অফলাইনে গেলাম। ’


মন্তব্য