kalerkantho


ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেসে আবারও খুন

আগাথা ক্রিস্টির ‘মার্ডার অন দি ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেস’ তাঁর সৃষ্ট চরিত্র এরকুল পোয়ারোর সবচেয়ে জনপ্রিয় উপন্যাসগুলোর একটি। আগামীকাল এই উপন্যাস অবলম্বনে মুক্তি পাচ্ছে আরো একটি চলচ্চিত্র। লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

৯ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেসে আবারও খুন

আগাথা ক্রিস্টির এরকুল পোয়ারো গোয়েন্দা সাহিত্যে একটি কিংবদন্তিতুল্য নাম। জমকালো গোঁফের এই বেলজিয়ান গোয়েন্দাকে নিয়ে লেখা আগাথা ক্রিস্টির উপন্যাসগুলো এখনো সমানভাবেই পাঠককে আলোড়িত করে।

১৯৩৪ সালে প্রকাশিত উপন্যাস ‘মার্ডার অন দি ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেস’কে এরকুল পোয়ারোর অন্যতম শ্রেষ্ঠ উপন্যাস হিসেবে আখ্যা দেন অনেক পাঠক-সমালোচক। উপন্যাসটি এতটাই জনপ্রিয় যে অনেকবার ভিন্ন ভিন্ন আঙ্গিকে এসেছে বিভিন্ন মাধ্যমে। কখনো রেডিওর নাটকে, কখনো মঞ্চে, কখনো বা রুপালি পর্দায়। দর্শকরা সর্বশেষ রুপালি পর্দায় চলচ্চিত্রটিকে দেখেছিল ১৯৭৪ সালে, কালজয়ী পরিচালক সিডনি লুমেটের পরিচালনায়। এবার ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেসের এই খুনের রহস্যকে বড় পর্দায় নিয়ে আসছেন অভিনেতা-পরিচালক কেনেথ ব্রানা। ‘থর’, ‘সিনডারেলা’র মতো বক্স অফিস কাঁপানো এই পরিচালক নিজেই হয়েছেন এরকুল পোয়ারো। গল্পটা পোয়ারোভক্তদের সবারই জানা—ইস্তাম্বুল থেকে লন্ডনে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেসে চেপে বসেছেন পোয়ারো। পথে এডওয়ার্ড র্যাচেট নামের এক যাত্রী তাঁর জীবনরক্ষায় সাহায্য চায়। কিন্তু তাঁর আচরণে এক অত্যন্ত ধূর্ত মানুষের পরিচয় পেয়ে খুব বেশি গা লাগাননি পোয়ারো। কিন্তু র্যাচেট খুন হওয়ার পর সেই রহস্যভেদের দায়িত্বটা তাঁর ওপরই এসে পড়ে! ভিন্ন চরিত্রের, ভিন্ন পেশার কিছু অপরিচিত ট্রেনযাত্রীর মধ্য থেকে খুনিকে খুঁজে বের করার রহস্যটাও হয়ে ওঠে জমজমাট। কেনেথ ব্রানার পাশাপাশি তারকাবহুল এই চলচ্চিত্রে আরো দেখা যাবে জনি  ডেপ, পেনেলোপি ক্রুজ, জুডি ডেঞ্চ, মিশেল ফাইফার, ডেইজি রিডলিকে।

ইউটিউবে ট্রেলার প্রকাশের পর থেকেই আগাথা ক্রিস্টির পাঁড় ভক্তদের তোপের মুখে পড়ে চলচ্চিত্রটি। ক্ষোভের মূল লক্ষ্য এরকুল পোয়ারোর গোঁফ! বিচ্ছিরি গোঁফটা তাঁরা কিছুতেই মানতে পারছেন না। মজার ব্যাপার, আগাথা ক্রিস্টির জীবনকালে মুক্তিপ্রাপ্ত সিডনি লুমেটের পরিচালনায় চলচ্চিত্রটিও একই কারণে ক্ষোভের মুখে পড়েছিল স্বয়ং লেখিকার।

এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে রুপালি পর্দায় পুনরাবির্ভাব ঘটছে একসময় হলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী মিশেল ফাইফারের। অভিনেত্রীও বেশ উচ্ছ্বসিত চলচ্চিত্রটি নিয়ে, ‘মা হিসেবে আমার দায়িত্ব আমি শেষ করেছি। এখন কাজে ফেরার পালা। আর কাজে ফেরার মাধ্যম হিসেবে চলচ্চিত্রটির চেয়ে ভালো কিছু হতে পারে না। কারণ এ কয়েক প্রজন্মের মানুষের প্রিয় লেখা। ’ তবে প্রত্যাবর্তনটা আরেকটু বিলম্বিত হতে পারত এই অভিনেত্রীর। শুরুতে ক্যারোলিন হাবার্ডের চরিত্রটিতে অভিনয় করার কথা ছিল আরেক হলিউড তারকা অ্যাঞ্জেলিনা জোলির। চিত্রনাট্য নিয়ে দ্বিমতের জন্য তাঁকে বাদ দেওয়া হয়। চলচ্চিত্রটিতে একটি প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে জনি ডেপকে। বক্স অফিসের বিচারে সময়টা একেবারেই ভালো যাচ্ছে না ৫৪ বছর বয়সী এই তারকার। চলচ্চিত্রটি দিয়ে তাঁর ভাগ্যের চাকা আবারও ঘুরবে—প্রত্যাশা সব ভক্তর। কিন্তু জনি একের পর এক বিতর্ক সৃষ্টি করেই যাচ্ছেন। এবার একেবারে মাতাল হয়ে ‘মার্ডার অন দি ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেস’-এর লন্ডন প্রিমিয়ারে হাজির হয়েছিলেন। যে কারণে চলচ্চিত্রের চেয়ে হালে জনির কাণ্ড নিয়ে আলোচনা হচ্ছে বেশি।


মন্তব্য