kalerkantho


প্রেরণার নাম

পাঁচ দশক পরও সায়েন্স ফিকশন সিনেমাগুলোতে স্পেস অডিসির প্রভাব স্পষ্ট। যুগে যুগে নির্মাতাদের অদৃশ্য অভিভাবক যেন স্ট্যানলি কুব্রিক। লিখেছেন অংগন মাহমুদ

১২ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



প্রেরণার নাম

‘ডক্টর স্ট্রেঞ্জলাভ’, ‘আ ক্লকওয়ার্ক অরেঞ্জ’, ‘ফুল মেটাল জ্যাকেট’ ইত্যাদি কালজয়ী চলচ্চিত্রে নিজের প্রতিভা ফুটিয়ে তুললেও স্ট্যানলি কুব্রিক সবচেয়ে বেশি আলোচিত হন ‘২০০১ : এ স্পেস অডিসি’র জন্যই। সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া স্টিভেন স্পিলবার্গের নতুন চলচ্চিত্র ‘রেডি প্লেয়ার ওয়ান’-এ চলচ্চিত্রটির উপস্থিতি প্রমাণ করে ৫০ বছর পরেও ‘২০০১ : এ স্পেস অডিসি’ বেঁচে আছে নির্মাতাদের মনে, দর্শকদের হৃদয়ে। এ চলচ্চিত্রটিতে ভিজ্যুয়াল এফেক্টয়ে যে নতুন যাত্রা শুরু হয় সে পথ ধরেই পরবর্তী সময়ে নির্মিত হয়েছে কল্পবিজ্ঞানধর্মী ও ফ্যান্টাসিধর্মী বহু সিনেমা। কথোপকথনের গুরুত্বকে পাশে সরিয়ে শুধু ক্যামেরার কাজ, এডিটিং ও সেটের সাহায্যে যে একটি পূর্ণ গল্প বলা যায় সে ধারণারও পথপ্রদর্শক ছিল অডিসি। এ ছবির মাধ্যমেই প্রথমবারের মতো পর্দায় ফুটে উঠেছিল মানুষের সঙ্গে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সম্পর্কের গল্প, যা পরবর্তী সময় অসংখ্য চলচ্চিত্রে পাথেয় হিসেবে কাজ করেছে।

কল্পবিজ্ঞানের গল্পে নতুন ধারার সৃষ্টি করেছিলেন কুব্রিক। মানবজাতির অতীত বর্তমানকে বিশ্লেষণ করে ইউটোপিয়া কিংবা ডিস্টোপিয়ায় রূপান্তরের যে মহাআখ্যান এ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল পরবর্তী পরিচালকরাও সেই ধারাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন তাঁদের কাজের মাধ্যমে। আন্দ্রেই তারকোভস্কির ‘সোলারিস’ থেকে শুরু করে জনপ্রিয় ‘স্টার ওয়ারস’ সিরিজও প্রবলভাবেই কুব্রিকের এই সিনেমা থেকে অনুপ্রাণিত। শুধু সে সময়েই নয়, হালের ‘গ্র্যাভিটি’ কিংবা ‘ইন্টারস্টেলার’ ছবিতে আলফনসো কুয়ারন অথবা ক্রিস্টোফার নোলানের মতো বর্তমানের নামি পরিচালকরাও বাঁচিয়ে রেখেছেন কুব্রিকের দর্শনকে। অন্যভাবে বলতে গেলে স্ট্যানলি কুব্রিকের ‘২০০১: এ স্পেস অডিসি’ পরবর্তী সময়ে কল্পবিজ্ঞান ঘরানার চলচ্চিত্রগুলোর জন্য শুধু অনুপ্রেরণা হিসেবেই কাজ করেনি, কাজ করেছে এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে, এক অদৃশ্য দিকনির্দেশকের ভূমিকায়।

চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্যকার আর্থার সি ক্লার্ক পরে একই নামে একটি উপন্যাস প্রকাশ করেন। উপন্যাসটির আরো তিনটি পর্ব বের হলেও চলচ্চিত্রটির একটা মাত্র সিক্যুয়াল বের হয়েছে। প্রখ্যাত কমিক স্রষ্টা জ্যাক কিরবির সৃষ্টিতে মার্ভেল কমিক্স চলচ্চিত্রটির একটি কমিকরূপ বের করে। ৫০ বছর ধরে অসংখ্য চলচ্চিত্রের অনুপ্রেরণা হিসেবে বেঁচে থাকার পাশাপাশি অনেক চলচ্চিত্রে এবং টিভি সিরিজে উল্লেখ হয়েছে ‘২০০১ : এ স্পেস ওডিসি’র নাম, ফুটে উঠেছে সরাসরি কোনো অংশ। এর মধ্যে ‘ওয়াল-ই’, ‘চার্লি অ্যান্ড দ্য চকলেট ফ্যাক্টরি’, ‘মুন’, ‘দ্য সিম্পসন’ উল্লেখযোগ্য।


মন্তব্য