logo
আপডেট : ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:১৮
অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সম্পর্কে ট্রাম্প
নোংরা দেশগুলোর মানুষকে যুক্তরাষ্ট্রে রাখা হচ্ছে কেন

নোংরা দেশগুলোর মানুষকে যুক্তরাষ্ট্রে রাখা হচ্ছে কেন

‘নিকৃষ্ট’ মন্তব্য করে আবারও তোপের মুখে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত বৃহস্পতিবার আইন প্রণেতাদের সঙ্গে এক বৈঠককালে আফ্রিকাসহ কয়েকটি দেশকে ‘নিকৃষ্ট’ বলে মন্তব্য করেন তিনি। এমনকি এসব দেশের ‘নিকৃষ্ট’ অভিবাসীদের তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে বের করে দিতে বলেছেন। বৈঠকে উপস্থিত আইন প্রণেতাদের বরাত দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক গণমাধ্যম এই খবর জানিয়েছে।

ওই মন্তব্যের পর ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন ট্রাম্প। বিভিন্ন দেশের সরকার, কূটনৈতিক, মানবাধিকার সংগঠন ও জাতিসংঘ থেকে শুরু করে সাংবাদিকরা তাঁর এই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। কেউ কেউ ট্রাম্পের মন্তব্যকেই ‘নিকৃষ্ট’ বলে আখ্যা দিয়েছেন।

হোয়াইট হাউসে আইন প্রণেতাদের সঙ্গে ট্রাম্পের ওই বৈঠকটি ছিল যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসনসংক্রান্ত বিষয়াদি নিয়ে। সেখানে ক্ষমতাসীন রপাবলিকানদের পাশাপাশি ডেমোক্রেটিক দলের আইন প্রণেতারাও ছিলেন।

এ নিয়ে প্রথম খবর ছাপে ওয়াশিংটন পোস্ট। তাদের খবর অনুযায়ী, ডেমোক্র্যাট সিনেটর রিচার্ড ডুরবিন ‘টেম্পোরারি প্রটেক্টেড স্ট্যাটাস’ (টিপিএস) ফের চালু করার কথা বলতে গেলেই চটে যান ট্রাম্প। তিনি হাইতি ও আফ্রিকান দেশগুলোকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আমরা কেন এসব নিকৃষ্ট দেশের জনগণকে যুক্তরাষ্ট্রে রাখব।’

এরপর বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে একই খবর প্রকাশ করে অন্যান্য পত্রিকা। ওয়াশিংটন পোস্ট ও নিউ ইয়র্ক টাইমসের খবরে বলা হয়, হাইতি ও আফ্রিকান দেশগুলোর পাশাপাশি মধ্য আমেরিকার দেশ এল সালভাদরকে ‘নিকৃষ্ট’ দেশের তালিকায় ফেলেন ট্রাম্প।

ওয়াশিংটন পোস্টের খবর অনুযায়ী ট্রাম্প বৈঠকে বলেন, ‘আমাদের হাইতির লোকজন দরকার নেই। তাদের বের করে দিন।’ এসব দেশের পরিবর্তে নরওয়ের মতো দেশগুলো থেকে অভিবাসী আনার পরামর্শ দেন ট্রাম্প। আগের দিন ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক করে গেছেন নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সাউথ ক্যারোলাইনা থেকে নির্বাচিত রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম। এ ব্যাপারে বিবিসির পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে হোয়াইট হাউস থেকে বৈঠক পরবর্তী যে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে, তাতে বিষয়টি অস্বীকার করা হয়নি।

এদিকে ট্রাম্পের এই মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশ থেকে চলছে এ সমালোচনা। যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্র্যাটদের পাশাপাশি রিপাবলিকানরাও ট্রাম্পের মন্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন। রিপাবলিকান মিয়া লোভে বলেছেন, এই মন্তব্যের জন্য ট্রাম্পের দুঃখ প্রকাশ করা উচিত। তিনি ট্রাম্পের মন্তব্যকে ‘নিষ্ঠুর, বিভেদ সৃষ্টকারী ও অভিজাত’ বলে আখ্যা দিয়েছেন।

ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতা এলিজা কুমিংস টুইটারে লেখেন, ‘আমি ক্ষমার অযোগ্য এই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাই।’ এদিকে ট্রাম্পের মন্তব্যের ব্যাপারে কথা বলতে হাইতি সে দেশে নিযুক্ত মার্কিন কূটনীতিককে তলব করেছে। মেক্সিকোর সাবেক প্রেসিডেন্ট ভিসেন্তে ফক্স টুইটারে লেখেন, ‘ট্রাম্পের মুখই আসলে পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি নিকৃষ্ট।’

গতকাল শুক্রবার ট্রাম্পের মন্তব্যকে ‘জঘন্য ও লজ্জাজনক’ বলেছে জাতিসংঘ। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন,
নির্বাহী সম্পাদক : মোস্তফা কামাল,
ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com