logo
আপডেট : ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:৫৮
১১১ বছর পূর্তির উৎসব
খাস্তগীর বালিকা বিদ্যালয়ে তিন প্রজন্মের মিলনমেলা

খাস্তগীর বালিকা বিদ্যালয়ে তিন প্রজন্মের মিলনমেলা

চট্টগ্রামের ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১১১তম বর্ষ উদযাপনে গতকাল আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

চট্টগ্রাম ডা. খাস্তগীর সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ১১১ বছর পূর্তির উৎসব ঘিরে তিন প্রজন্মের মিলনমেলা ঘটেছে প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গণে। গতকাল শুক্রবারের এই উৎসবে দেশের প্রতিষ্ঠিত নারীরা যেমন এসেছেন, তেমনি এসেছে সদ্য পাস করে কলেজে পা রাখা শিক্ষার্থীরাও। স্মৃতিবিজড়িত বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে দিনভর শৈশবের স্মৃতি রোমন্থনে মশগুল ছিলেন প্রাক্তন ছাত্রীরা।

১১১ বছর পূর্তির দুই দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। তিনি বলেন, ‘এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আমি মনে করি পৃথিবীর এমন একটি প্রান্ত যেখানে সবাই আসে তাদের জীবনটাকে মনোরমভাবে সাজাতে। আমি মনে করি, এই স্কুলটি সব সময় তার শিক্ষার্থীদের মনোরম জীবন সাজাতে অনুপ্রাণিত করে। এই স্কুলের ছাত্রী ছিলেন প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার, যিনি স্বদেশের স্বাধীনতার জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। প্রত্যাশা করি, এই স্কুলের শত শত ছাত্রী সমাজকে, সারা বিশ্বকে আলোকিত করবেন।’

স্কুলের ছাত্রী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ড. শিরীন আক্তার পুনর্মিলনী উৎসবে শৈশবের স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে বলেন, ‘১৯৬৪ সালে এই স্কুলে আমি ক্লাস ফোরে ভর্তি হই। হোস্টেলে থাকতাম। খুব ভূতের ভয় করত। সবাই বলত, খাস্তগীর স্কুল তো আগে হাসপাতাল ছিল। মরা মানুষের হাড্ডি সব গাছের নিচে আছে। সে জন্য ভূতের ভয়। বাথরুমে একা যেতে পারতাম না। সব সময় চোখ বন্ধ করে থাকতাম। মাঝরাতে কেঁদে উঠতাম। খবরটা অভিভাবকদের কাছে পৌঁছল। তারা এসে টিচারদের বললেন। টিচাররা বললেন, স্কুলে ভূত নেই। ওদের মনের ভূত আগে তাড়াতে হবে।’

২০১৭ সালে এসএসসি পাস করা রওনক জাহান বলল, ‘খাস্তগীর স্কুল হচ্ছে আমাদের আইডেনটিটি। আমাদের অস্তিত্ব। যখন কেউ শোনে আমরা খাস্তগীরের ছাত্রী ছিলাম, তখন অনেক সম্মান করে। এটা আমাদের অনেক ভালো লাগে।’

মেলবন্ধনের চিত্রটিকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেন আয়োজক কমিটির সভাপতি ডা. শাহানারা চৌধুরী। তিনি বলেন, “এই যে একজন আরেকজনকে দেখে বলছেন ‘ও আল্লাহ, তুমি না...’, ‘তুমি কোন ব্যাচের?’, ‘আরে চিনি চিনি লাগছে!’ এটাই আমরা চেয়েছিলাম। প্রতিবছরই নির্দিষ্ট একটি দিনে এভাবে সবাই মিলিত হওয়ার ইচ্ছা জাগছে।”

আয়োজকরা জানান, ১১১ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিভিন্ন আয়োজন আজ শনিবার পর্যন্ত চলবে।

সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন,
নির্বাহী সম্পাদক : মোস্তফা কামাল,
ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com