kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

অটো শ্রমিকদের ১২ দফা

চট্টগ্রামে ২০ ডিসেম্বর ধর্মঘটের ডাক

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০১:০৯



চট্টগ্রামে ২০ ডিসেম্বর ধর্মঘটের ডাক

গণপরিবহনের একাংশের মালিকদের তিন দিনের ধর্মঘটের পর এবার অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিকরা ধর্মঘটের ডাকা দিয়েছে। আলাদা নীতিমালা অথবা সার্ভিস রুলস প্রণয়ন, চার হাজার নতুন গাড়িকে নিবন্ধন দেওয়াসহ ১২টি দাবি তুলে আগামী ২০ ডিসেম্বর সকাল-সন্ধ্যা ধর্মঘট পালনের কথা জানিয়েছে তারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর অক্সিজেন মোড়ে অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়ন আয়োজিত শ্রমিক সমাবেশে প্রধান বক্তা সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ এ ঘোষণা দেন।

হারুন বলেন, এই ধর্মঘটের মাধ্যমে যদি দাবি আদায় না হয়, তাহলে আমরা আরো কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব। ২০ ডিসেম্বর প্রায় ৫০ হাজার সিএনজি অটোরিকশা ধর্মঘট পালন করবে। '

মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে ও বেলাল হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের চট্টগ্রাম অঞ্চলের সহসভাপতি ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুল নবী লেদু। বক্তব্য দেন যুগ্ম সম্পাদক ফারুক হোসেন, রফিকুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, আলী আকবর, মো. শাহীন, মো. কবীর, মো. আজম, মো. হানিফ প্রমুখ।

হারুনুর রশীদ বলেন, 'আমরা ১২ দফার দাবিতে এক বছর আগে পরিবহন ফেডারেশনের সঙ্গে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিলাম। প্রশাসনের আশ্বাসে আমরা ওই ধর্মঘট স্থগিত করেছিলাম। এক বছর অতিবাহিত হয়েছে। ছয় মাস আগে প্রশাসনকে স্মরকলিপি দিয়েছি।

তার পরও আমাদের দাবি বাস্তবায়ন করেনি প্রশাসন। প্রশাসনের এ ব্যর্থতার জন্য আগামী ২০ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম নগরী ও জেলায় সর্বাত্মক ধর্মঘট পালন করা হবে। '

প্রধান অতিথি বলেন, সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালকদের করুণ অবস্থা বিরাজ করছে। একদিকে মালিকদের অতিরিক্ত দৈনিক জমা আদায়। অন্যদিকে পুলিশের হয়রানি এবং যখন-তখন মামলা করার কারণে চালকরা দিশাহারা হয়ে পড়েছে। অটোরিকশাগুলোকে যেকোনো মামলায় ৩০০ টাকার বেশি জরিমানা করা যাবে না।

সমাবেশ থেকে ধর্মঘট পালনের আগের দিন ১৯ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে শ্রমিক সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

অটোরিকশা শ্রমিকদের ১২ দফা দাবির আরো আছে পার্কিংব্যবস্থা নিশ্চিত না করা পর্যন্ত 'নো-পার্কিং' মামলা বন্ধ করা, সহজ শর্তে চালকদের লাইসেন্স প্রদান, মালিকের জমা ৬০০ টাকা ও মানসম্মত মিটার প্রদান করার মাধ্যমে নগরীতে যাত্রীসেবা নিশ্চিত করা।

উল্লেখ্য, গত ৩ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম নগরীতে ট্রাফিক পুলিশের হয়রানি বন্ধ, অনুমোদন ও ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধ করাসহ ১১ দফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের গণপরিবহন ধর্মঘট শুরু করে মালিক সংগঠনগুলোর একাংশ। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ধর্মঘট স্থগিত করা হয়।


মন্তব্য