kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

সরকারের চার বছর পূর্তির সমাবেশে মেয়র নাছির

খালেদা জিয়া আবোলতাবোল কথা বলছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০২:২৯



খালেদা জিয়া আবোলতাবোল কথা বলছেন

ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, 'খালেদা জিয়া অনেক আবোলতাবোল কথা বলছেন। এর কারণ তিনি বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধকে স্বীকার করেন না। তাঁর হাত নিরীহ সাধারণ মানুষের রক্তে রঞ্জিত। তিনি গণতনে্ত্রর নামে পেট্রলবোমায় নারী, শিশু, শ্রমিকসহ ১০০ দিনে শতাধিক নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছেন এবং কয়েক হাজার কোটি টাকার রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করেছেন। এর দায় তাঁকে অবশ্যই বহন করতে হবে।'

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের চতুর্থ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চত্বরে মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে মেয়র নাছির এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, 'আমরা স্বাধীনতা এনেছি। গণতন্ত্র রক্ষা করেছি। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ও যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়েছি। এ দেশ থেকে উগ্র সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ চিরতরে নির্মূলের অদম্য ক্ষমতাও আমরা রাখি।'

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে মেয়র নাছির বলেন, 'আপনি তথাকথিত গণতন্ত্র রক্ষা দিবস পালন করে পুরো জাতির কাছে উপহাসের পাত্র হয়েছেন। আপনার উচিত ছিল ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন না করার জন্য অনুশোচনা দিবস পালন করা। শেখ হাসিনা সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে সাংবিধানিক সরকার প্রতিষ্ঠা করে গণতন্ত্র রক্ষা করেছেন। নইলে দেশে অসাংবিধানিক সরকার হতো, গণতনে্ত্রর কবর রচিত হতো।'

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চেৌধুরী বলেন, 'জঙ্গিবাদের সঙ্গে আঁতাত ও উগ্র সাম্প্রদায়িকতার সঙ্গে সামান্যতম যোগসূত্রতা আছে, এমন কাউকে ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হবে না। তাদের রাজনীতি করারও অধিকার থাকতে পারে না। কারণ তারা জনগণ ও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।'

মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, খোরশেদ আলম সুজন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম রেজাউল করিম চৌধুরী, এম এ রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর, শ্রম সম্পাদক আবদুল আহাদ, উপ-প্রচার সম্পাদক শহিদুল আলম, কার্যনির্বাহী সদস্য আবুল মনসুর প্রমুখ।

এর আগে নগরের বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ব্যানার-ফেস্টুনসহ মিছিল সহকারে জেলা পরিষদ চত্বরে মিছিলপূর্ব সমাবেশে যোগদান করে। মিছিলটি নগরের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে দারুল ফজল মার্কেটে দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।

'উন্নয়নের স্বার্থেই সরকারের ধারাবাহিকতা প্রয়োজন'
সরকারের চার বছর পূর্তি উপলক্ষে গতকাল বিকেলে বন্দর নগরের দোস্ত বিল্ডিংয়ে দলীয় কার্যালয়ে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ আলোচনাসভার আয়োজন করে। সভায় নেতারা বলেন, '২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দেশের এক ক্রান্তিলগ্নে আওয়ামী লীগ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা এবং বিএনপি-জামায়াতের অগ্নিসন্ত্রাস বন্ধ করে দেশকে জঙ্গি রাষ্ট্রে পরিণত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করেছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের চার বছরের সফলতায় বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। দেশের উন্নয়নের স্বার্থেই সরকারের ধারাবাহিকতা প্রয়োজন।'

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাউজানের পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিতের সঞ্চালনায় আলোচনাসভায় বক্তব্য দেন সহসভাপতি অধ্যাপক মো. মঈনুদ্দিন, দপ্তর সম্পাদক মহিউদ্দিন বাবলু, শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার, আইনবিষয়ক সম্পাদক ভবতোষ নাথ, উপ-দপ্তর সম্পাদক আলাউদ্দিন সাবেরী, উত্তর জেলা কৃষক লীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।


মন্তব্য