kalerkantho


ভুল অস্ত্রোপচারে ক্ষতিগ্রস্ত নারীকে ৯ লাখ টাকা দেওয়ার নির্দেশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৬:৫১



ভুল অস্ত্রোপচারে ক্ষতিগ্রস্ত  নারীকে ৯ লাখ টাকা দেওয়ার নির্দেশ

পটুয়াখালীর বাউফলে ভুল অস্ত্রোপচারে ক্ষতিগ্রস্ত মাকসুদা বেগমকে ৯ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাই কোর্ট। আজ বুধবার বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের হাই কোর্ট বেঞ্চ  এই আদেশ দেয়।

আদেশে বলা হয়েছে, এর মধ্যে অস্ত্রোপচারকারী ভুয়া চিকিৎসক রাজন দাসকে ৫ লাখ টাকা দিতে হবে এবং বাকিটা দেবে বাউফলের নিরাময় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ। আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যেই এ টাকা ভুল অস্ত্রোপাচারে ক্ষতিগ্রস্ত মাকসুদা বেগমকে পরিশোধ করতে হবে।

আদালতে এদিন রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শশাঙ্ক শেখর সরকার ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল জেসমিন সামসাদ। মাকসুদা বেগমের পক্ষে ছিলেন ইমরান এ সিদ্দিক। অপরদিকে পটুয়াখালীর সিভিল সার্জনের পক্ষে আইনজীবী শামসুদ্দিন বাবুল এবং ক্লিনিকের পরিচালক ও নার্সের পক্ষে আইনজীবী মো. নজরুল ইসলাম শুনানি করেন।

রায় ঘোষণার পরে এ ব্যাপারে আইনজীবী শাসুদ্দিন বাবুল বলেন, ১৫ জানুয়ারির মধ্যে মাকসুদা বেগমকে নয় লাখ টাকা পরিশোধ করে প্রতিবেদন দিতে বলেছে আদালত। আর পটুয়াখালীর সিভিল সার্জনকে বিষয়টি তদারকির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২২ জুলাই একটি জাতীয় দৈনিকে  ‘সাড়ে তিন মাস পর পেট থেকে বের হল গজ!’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, গত মার্চে সন্তান প্রসবের জন্য মাকসুদা বেগমকে (২৫) বাউফলের নিরাময় ক্লিনিকে নেওয়া হয়। অস্ত্রোপচার করে মাকসুদার একটি মেয়ে হয়। কয়েক দিন ক্লিনিকে থাকার পর তারা বাড়ি ফেরেন। এক মাস পর মাকসুদা পেটে তীব্র ব্যথা অনুভব করায় আবারও ওই ক্লিনিকে যান। চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ওষুধ দিয়ে ব্যথা কমানোর চেষ্টা করেন। 

দুই মাস পর মাকসুদার খিঁচুনি দিয়ে জ্বর ওঠে, খাওয়া-দাওয়াও বন্ধ হয়ে যায়। পরে পটুয়াখালীর এক চিকিৎসকের পরামর্শে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ  হাসপাতালে ভর্তি হন ওই নারী। সেখানে ১২ জুলাই মাকসুদার পেট থেকে গজ বের করা হয়।

পরে এ নিয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনটি গত ২৩ জুলাই আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. শহিদ উল্লা।



মন্তব্য