kalerkantho


গেজেট নিয়ে আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ২০:১৭



গেজেট নিয়ে আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

নিম্ন আদালতের বিচারকদের জন্য জারি করা গেজেট সুপ্রিম কোর্ট গ্রহণ করার পরদিনই এনিয়ে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সরকার সমর্থক ও বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা। সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন ও সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকনের নেতৃত্বে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা এবং সমিতির সহসভাপতি মো. অজিউলল্লাহ’র নেতৃত্বে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। 

গেজেটটি সংশোধিত আকারে প্রকাশ করতে হবে : বার সভাপতি
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেছেন, নিম্ন আদালতের বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধিমালার গেজেট গ্রহণ করে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের দেওয়া সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কোন মন্তব্য করতে চাই না। কারণ আপিল বিভাগ যখন কোনো রায় দেয় তখন তা মানা সকলের জন্য বাধ্যতামূলক। তিনি বলেন, বিচার বিভাগের পৃথক সচিবালয় প্রতিষ্ঠার দাবি দীর্ঘদিনের। কিন্তু শৃঙ্খলা বিধিমালার যে গেজেট প্রণীত হয়েছে তাতে সচিবালয় প্রতিষ্ঠার জন্য কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। তাই আইন মন্ত্রণালয়ের প্রভাবমুক্ত একটি বিচার বিভাগীয় সচিবালয় স্থাপনপূর্বক পুনরায় গেজেটটি সংশোধিত আকারে প্রকাশ করে তা আপিল বিভাগে উপস্থাপনে সরকারের প্রতি দাবি জানাচ্ছি। সমিতি ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বার সভাপতি এসব কথা বলেন। এ সময় বারের সম্পাদক ব্যারিস্টার এম মাহবুবউদ্দিন খোকন, সহ-সম্পাদক শামীমা সুলতানা দীপ্তি, সদস্য শেখ তাহসিন আলী উপস্থিত ছিলেন।

বগেজেট সংশোধনের দাবি আদালত অবমাননার শামিল : সহসভাপতি
সুপ্রিম কোর্ট বারের সহ-সভাপতি মো. অজি-উল্লাহ বলেছেন, বিচারকদের শৃঙ্খলা বিধিমালার গেজেট আপিল বিভাগ কর্তৃক গ্রহন করার মধ্য দিয়ে মাসদার হোসেন মামলার রায়ের পরিপূর্ণতা লাভ করেছে। ওই গেজেটে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শকে প্রাধান্য দেওয়ায় এটাকে আর বিতর্কিত করার কোনো সুযোগ নেই। তিনি বলেন, সর্বোচ্চ আদালত গেজেট গ্রহণ করায় তা সংশোধনের সুযোগ নেই। এরপরেও গেজেট সংশোধনের দাবি জানানো আদালত অবমাননার শামিল। আজ সমিতি ভবনে ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বারের সরকার সমর্থিত অংশের সহ-সভাপতি এসব কথা বলেন। এ সময় বারের কোষাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম হিরু, সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, সদস্য নূরে আলম উজ্জ্বল, হাবিবুর রহমান, কুমার দেবুল দে।


মন্তব্য