kalerkantho


বিশ্বজিৎ হত্যায় আসামি তমাল কারাগারে

আদালত প্রতিবেদক    

২৫ জুন, ২০১৮ ১৪:২৮



বিশ্বজিৎ হত্যায় আসামি তমাল কারাগারে

প্রকাশ্য দিবালোকে পুরান ঢাকায় দর্জি দোকানি বিশ্বজিৎ দাসকে কুপিয়ে হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি তারিক বিন জোহর ওরফে তমালের  আত্মসমর্পণের পর তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। সাজাপ্রাপ্ত এ আসামি শুরু থেকেই পলাতক ছিলেন।

আজ সোমবার ঢাকার দ্রুত বিচার চতুর্থ ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুর রহমান সরদার ওই আদেশ দেন। ২০১৩ সালের ১৮ ডিসেম্বর মামলার রায় ঘোষণার সাড়ে চার বছর পর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চেয়ে আবেদন করেন তমাল। শুনানি শেষে বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আদালতে জামিন আবেদন শুনানি করেন তার আইনজীবী জহিরুল আমিন খান।

মামলার বিবরণে প্রকাশ, ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর বিএনপিসহ বিরোধী দলের অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে আসামিরা পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্কের সামনে দর্জি দোকানি বিশ্বজিৎ দাসকে নির্মমভাবে চাপাতির কোপ, লোহার রড ও কিল ঘুষি দিয়ে মারাত্মক আহত করেন। ওইদিনই তিনি মারা যান।

হত্যাকাণ্ডের দুই মাস ২৪ দিন পর ওই বছরের ৫ মার্চ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীসহ মোট ২১ জনকে আসামি করে চার্জশিট দাখিল করেন  গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক তাজুল ইসলাম। পরের বছরের ২ জুন আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের তৎকালীন বিচারক। একইসঙ্গে তাদের অব্যাহতির আবেদন নাকচ করেন।

সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ছয় মাসের মাথায় একই বছর বিচারিক ট্রাইব্যুনাল মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে ছাত্রলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম শাকিল ওরফে চাপাতি শাকিলসহ আট আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও অপর ১৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন ট্রাইব্যুনাল।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত অন্যরা হলেন মাহফুজুর রহমান নাহিদ, মীর মো. নূরে আলম লিমন, জি এম রাশেদুজ্জামান শাওন, কাইউম মিয়া টিপু, এমদাদুল হক এমদাদ, রাজন তালুকদার ও সাইফুল ইসলাম।

এই আসামি ছাড়াও যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত অন্যরা হলেন এইচ এম কিবরিয়া, কামরুল হাসান, গোলাম মোস্তফা, ইমরান হোসেন ইমরান, খন্দকার মো. ইউনুস আলী, আলাউদ্দিন, ওবায়দুর কাদের তাহসিন, আল-আমিন শেখ, আজিজুর রহমান আজিজ, মনিরুল হক পাভেল, মোশারফ হোসেন ও রফিকুল ইসলাম।

 



মন্তব্য