kalerkantho


বিএনপিই প্রথম প্রতিহিংসার রাজনীতি চালু করে : হানিফ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ নভেম্বর, ২০১৭ ১৭:৩৬



বিএনপিই প্রথম প্রতিহিংসার রাজনীতি চালু করে : হানিফ

বিএনপিই এ দেশে প্রথম প্রতিহিংসার রাজনীতি চালু করেছিল। ২০০১ সালে তারা ক্ষমতায় আসর পর জার করে সরকারী কর্মকর্তাদের অবসরে এবং চাকরী থেকে বরখাস্ত করেছিল।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদাক মাহবুব উল আলম হানিফ আজ কুষ্টিয়া সরকারী কলেজে নব-নির্মিত শেখ হাসিনা হলের উদ্ধোধনকালে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।  

রবিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া আওয়ামীলীগকে প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসা সংক্রান্ত বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘এ দেশের জনগণ জানে ২০০১ সালে তারা ক্ষমতায় আসার পর কিভাবে জোর করে সরকারি কর্মকর্তাদের অবসরে দিয়েছিল, আওয়ামীমনা সরকারি কর্মকর্তাদের চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছিল। তিনিই প্রথম এ দেশে প্রতিহিংসার রাজনীতি চালু করেছিলেন আর এখন আওয়ামী লীগকে বলছেন প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে। ’

এদিনের সমাবেশে বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্য সত্যের অপলাপ এবং মিথ্যাচার করে জাতিকে বিভ্রান্ত করেছে উল্লেখ করে হানিফ বলেন, এই সরকারের অধীনেই এবং সংবিধান অনুযায়ীই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ইভিএম পদ্ধতি বাতিল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য ১ কোটি ৩০ লাখ ভুয়া ভোটার বানিয়েছিলেন, সেই জন্য তারা ইভিএম পদ্ধতি চায় না। নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দেয়ার বিধান অতীতে কখনও ছিল না। তাদেরকে নিয়োগ করা না করা এটা কমিশনের বিষয় বলে উল্লেখ করেন তিনি।  

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কাজি মনজুর কাদির, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে তিনি কলেজের ২০১৭ সালের শিক্ষাবর্ষে নবীন বরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

 


মন্তব্য