kalerkantho


মোহাম্মদ নাসিম বললেন

জামায়াতকে আঁকড়ে ধরতেই খালেদার বিদেশি আইনজীবী নিয়োগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ মার্চ, ২০১৮ ০৫:০৬



জামায়াতকে আঁকড়ে ধরতেই খালেদার বিদেশি আইনজীবী নিয়োগ

মোহাম্মদ নাসিম। ফাইল ছবি

ক্ষমতাসীন ১৪ দলের মুখপাত্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, 'জামায়াতকে আঁকড়ে ধরার জন্যই খালেদা জিয়ার আইনজীবী পরিবর্তন করে যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলীর আইনজীবী নিয়োগ করা হয়েছে।' তিনি গতকাল বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ১৪ দলের এক প্রতিবাদ সমাবেশে এ মন্তব্য করেন। অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নাসিম বলেন, 'আজকে শুনলাম উনার (খালেদা জিয়া) নিজের আইনজীবীর ওপর কোনো বিশ্বাস নেই। তাই একজন বিদেশি আইনজীবীকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সেই আইনজীবী কে? একাত্তরের ঘাতক মীর কাসেম আলীর আইনজীবী হয়েছিলেন লন্ডনের যে কুখ্যাত আইনজীবী, তিনিই এই আইনজীবী। একাত্তরের ঘাতকের লবষ্টি ছিলেন যিনি, সেই আইনজীবীকে ঢাকায় আনছে খালেদা জিয়ার দল। তার মানে হলো, এখনো খালেদা জিয়া জামায়াতকে ছাড়েননি, একাত্তরের ঘাতকদের ছাড়েননি।'

মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশ করে নাসিম বলেন, 'আপনার নেত্রী জেলে আছে আর আপনাদের আন্দোলন হলো ঘরের মধ্যে। আর আমরা জেল খেটেছি, মার খেয়ে মাঠ ছাড়িনি। আপনারা কী আন্দোলন করবেন বাংলার জনগণ বুঝে গেছে। বাংলার জনগণ আপনাদের আর ক্ষমতায় আসতে দেবে না।'

আওয়ামী লীগের উপদষ্টো পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু বলেন, 'দেশে বারবার জঙ্গি আক্রমণ হয়েছে। অধ্যাপক জাফর ইকবালের ওপর হামলা একই ধারাবাহিকতা।' আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেন, 'জঙ্গিরা বিভিন্নভাবে মানুষকে ধর্মের দোহাই দিয়ে বিভ্রান্ত করে। এক জঙ্গি আরেক জঙ্গির বউকে নিয়ে সংসার করে, এটা কি ইসলাম সমর্থন করে? মানুষ হত্যা এটা কি ইসলাম সমর্থন করে, নিজেরা আত্মহত্যা করে এটা কি ইসলাম সমর্থন করে? করে না।'

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, 'অনেকেই বলে জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনা বিচ্ছিন্ন ঘটনা, এটা সে (জঙ্গি) নিজে নিজে করেছে। আমি বলব এটা পরিকল্পিত ঘটনা এবং যারা বলে সে নিজে নিজে আক্রমণ করেছে তারা ভুল। বিএনপি-জামায়াতের সময় থেকে এ দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান হয়েছিল। তার পর থেকে আমাদের ওপর নানাভাবে নানা ধরনের আক্রমণ হয়েছে।'

সমাবেশে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, জাতীয় পার্টি (জেপি) মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম, জাসদ একাংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া, জাসদ (ইনু) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী, গণআজাদী লীগের সাধারণ সভাপতি এ কে শিকদার, সাম্যবাদী দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন উর রশীদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মীজানুর রহমান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, অধ্যাপক নিমচন্দ্র ভৌমিক। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ সমাবেশ পরিচালনা করেন।



মন্তব্য