kalerkantho


পদ্মা সেতুর আদলে হচ্ছে বাণিজ্য মেলার প্রধান ফটক

এম সায়েম টিপু    

১৯ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১০:৫৯



পদ্মা সেতুর আদলে হচ্ছে বাণিজ্য মেলার প্রধান ফটক

উন্নয়নের সাহসী প্রতিকৃতি পদ্মা সেতু এবং ঐতিহ্যের ঢাকা গেটের আদলে তৈরি হচ্ছে ২৩তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা প্রধান ফটক। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধুর ওপর দেশের প্রতিথযশা চিত্রকর্মীদের আঁকা ২৬টি চিত্রকর্ম থাকবে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নে।

বছরের শুরুতে রাজধানীর শেরেবাংলানগরে এবারও এই মেলার আয়োজন করছে রপ্তানি  উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। এরই মধ্যে ৭০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে জানায় ইপিবি।

এদিকে বাণিজ্য মেলায় স্টল বাড়ানোতে গুরুত্ব থাকলেও তবে এবার ঘটছে উল্টো। এবার মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের স্টল কমছে। দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠানের স্টল ও প্যাভিলিয়ন মিলিয়ে এবার ৫৪০টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিচ্ছে। গতবার অংশ নিয়েছিল ৫৮৪টি। সেই হিসেবে এবার ৪৪টি স্টল কমছে। মেলায় ডিজিটালাইজেশন বা তথ্য-প্রযুক্তিতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

মেলায় থাকবে ডিজিটাল এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার।

এর মাধ্যমে মেলায় অবস্থিত স্টল ও প্যাভিলিয়নের অবস্থান জানা যাবে। ফলে দর্শনার্থীরা সহজেই কাঙ্ক্ষিত স্টলে যেতে পারবে। নির্দিষ্ট অ্যাপের মাধ্যমে মেলার হালনাগাদ অবস্থা জানা যাবে। এ ছাড়া অনলাইনে দেশ-বিদেশ থেকে সব ধরনের তথ্য পাওয়া যাবে। মেলায় প্রথমবারের মতো অর্কিডের বাগান করা হচ্ছে।
গতকাল সোমবার ইপিবি সূত্রে জানা যায়, মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলায় বাংলাদেশসহ ১৭টি দেশ অংশগ্রহণ করবে। দেশগুলো হলো ভারত, পাকিস্তান, চীন, ব্রিটেন, দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়া, ইরান, থাইল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, সিঙ্গাপুর,, ভুটান, মরিশাস, ভিয়েতনাম, মালদ্বীপ, নেপাল ও হংকং।

মেলার আয়োজক সূত্র জানায়, মেলায় এবারও মা ও শিশু কেন্দ্র, শিশুপার্ক, ই-পার্ক, এটিএম বুথ, রেডিমেড গার্মেন্টস, হোমটেক্স, ফেব্রিকস পণ্য, হস্তশিল্পজাত, পাট ও পাটজাত, গৃহস্থালি ও উপহারসামগ্রী, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, তৈজসপত্র, সিরামিক, প্লাস্টিক, পলিমার পণ্য, কসমেটিকস হারবাল ও প্রসাধনীসামগ্রী, খাদ্য ও খাদ্যজাত পণ্য, ইলেকট্রিক ও ইলেকট্রনিকসামগ্রী, ইমিটেশন ও জুয়েলারি, নির্মাণসামগ্রী ও ফার্নিচার স্টল থাকছে।

পাকিস্তানের স্টল থাকছে কি না- জানতে চাইলে ইপিবির উপসচিব মো. আবদুর রউফ কালের কণ্ঠকে বলেন, 'পাকিস্তানের সঙ্গে যেহেতু আমাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক আছে, সেই হিসেবে তারাও এই মেলায় অংশগ্রহণ করতে পারে। তাদের আবেদনও আমাদের বিবেচনায় রয়েছে।'

নিরাপত্তার কথা উল্লেখ করে তিনি জানান, মেলায় চারস্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা থাকবে। আনসার, পুলিশ, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) পাশাপাশি থাকবে সাদা পোশাকধারী গোয়েন্দা। থাকবে সিসিটিভি ক্যামেরা।

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা চলবে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। কোনো সাপ্তাহিক ছুটি ছাড়াই মেলা সকাল ১০ থেকে রাত ১০ পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে। প্রবেশ ফি ধরা হয়েছে জনপ্রতি ৩০ টাকা। ছোটদের জন্য ২০ টাকা। এবার মেলায় গেটের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মীর ব্রাদার্স।

এদিকে সরকার পূর্বাচলে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করছে। ২০১৮ সালের পর আর ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা (ডিআইটিএফ) শেরেবাংলানগরে হবে না এমন তথ্য দিয়ে সরকারের পক্ষে থেকে বলা হলেও এখন স্থায়ী মেলাপ্রাঙ্গন প্রস্তুতি অনেক দূর এগিয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাঁদের মতে, চীনের নেওয়া প্রকল্প সাধারণত ধীরে চলো নীতি হওয়ায় এখনো বলা যায় না কবে নাগাদ স্থায়ী প্রাঙ্গণে মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

আয়োজকরা জানায়, ২০১৭ সালের বাণিজ্য মেলায় ১৪ কোটি ৩০ লাখ ডলারের রপ্তানি আদেশ পেলেও এবার ২০১৮ সালের মেলায় ১৫ কোটি কোটি ডলারের প্রত্যাশা করছে ইপিবি।

 

 

 

 



মন্তব্য