kalerkantho


দেশের প্রথম কম্পানি হিসেবে সিঙ্গাপুরের শেয়ারবাজারে যাচ্ছে সামিট

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৪:১১



দেশের প্রথম কম্পানি হিসেবে সিঙ্গাপুরের শেয়ারবাজারে যাচ্ছে সামিট

ছবি অনলাইন

বাংলাদেশের প্রথম কম্পানি হিসেবে সিঙ্গাপুরের শেয়ারবাজারে ঢুকতে যাচ্ছে সামিট গ্রুপ। গতকাল শনিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সিঙ্গাপুর স্টক এক্সচেঞ্জে (এসজিএক্স) তালিকাভুক্ত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন কম্পানি সামিট পাওয়ার ইন্টারন্যাশনাল।

বাংলাদেশের প্রথম কম্পানি হিসেবে আগামী এপ্রিলে তালিকাভুক্ত হবে প্রতিষ্ঠানটি। এশিয়ায় বিভিন্ন প্রকল্পে বিনিয়োগ করার জন্য শেয়ার ছেড়ে অর্থ উত্তোলন করবে কম্পানিটি। বর্তমানে ব্যবসা-বাণিজ্যের অন্যতম বৈশ্বিক কেন্দ্র হয়ে উঠেছে নগররাষ্ট্র সিঙ্গাপুর।

বর্তমানে ভারত ও পাকিস্তানের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশও দক্ষিণ এশিয়াকে তরলায়িত প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) অন্যতম বাজারে পরিণত করেছে। ফলে এ দেশে গ্যাস ও বিদ্যুৎ কম্পানিগুলোর বিনিয়োগ বাড়ছে।

সামিট পাওয়ারের মূল কম্পানি সামিট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজ খান সিঙ্গাপুরের রয়টার্সকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘বাংলাদেশের শেয়ারবাজার অনেক ছোট, অথচ আমাদের আর্থিক চাহিদা অনেক বড়। সিঙ্গাপুর বৈশ্বিক আর্থিক কেন্দ্রে পরিণত হতে যাচ্ছে। সুতরাং শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার জন্য এটি একটি দারুণ জায়গা।’ তবে এ ব্যাপারে এসজিএক্স কোনো মন্তব্য করেনি। আজিজ খান জানান, বৈশ্বিক কো-অর্ডিনেটর হিসেবে সিটি গ্রুপ, ডিবিএস এবং ইউবিএসকে নিয়োগ দিয়েছেন তাঁরা। তবে ইনিশিয়াল পাবলিক অফারিংয়ের (আইপিও) মাধ্যমে কত উত্তোলন করা হবে, এ ব্যাপারে কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। বলেন, ‘এ তথ্য গোপনীয়।’

বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উত্পাদনে প্রায় ১৩ শতাংশ অংশগ্রহণ রয়েছে সামিট পাওয়ারের। কম্পানিটি ১৫টি পাওয়ার প্লান্ট পরিচালনা করে। যাদের সম্মিলিত উত্পাদন সক্ষমতা প্রায় এক হাজার ২০০ মেগাওয়াট। এ ছাড়া সামিট বাংলাদেশের দ্বিতীয় ফ্লোটিং স্টোরেজ অ্যান্ড রিগেশিফিকেশন ইউনিট (এফএসআরইউ) নির্মাণে কাজ করছে। এর মাধ্যমে আমদানীকৃত এলএনজি দেশের বাজারে সরবরাহ করা হবে এবং এখান থেকে প্রতিদিন ৫০০ মিলিয়ন কিউবিক ফুট প্রাকৃতিক গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। মহেশখালীতে অবস্থিত এ কেন্দ্রটি আগামী বছরের শুরুতে প্রস্তুত হবে বলে জানান আজিজ খান।


মন্তব্য