kalerkantho


কর্মী সভায় আহত বিএনপি নেতার মৃত্যু, ১১ নেতার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ২০:৩৩



কর্মী সভায় আহত বিএনপি নেতার মৃত্যু, ১১ নেতার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

ছবি : কালের কণ্ঠ

বরগুনার পাথরঘাটায় বিএনপির কাকচিড়া ইউনিয়ন শাখার সাবেক সভাপতি এবং কাকচিড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. বশির আহমেদ শিকদার (৫৬) দলীয় কোন্দলে আহত হয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বুধবার মারা গেছেন। এর আগে গত ১৫ ডিসেম্বর কাকচিড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে একটি সাংগঠনিক সভায় প্রতিপক্ষ মো. রাজা জমাদ্দার কৃর্তক আহত হয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন ছিলেন। দলীয় কর্মী সভায় উপজেলা পর্যায়ের বিএনপির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিল। এব্যপারে পাথরঘাটা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

সরেজমিনে গিয়ে ও পুলিশের তথ্যমতে জানা যায়, গত ১৫ ডিসেম্বর পাথরঘাটা উপজেলা বিএনপির উদ্যোগে কাকচিড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কাকচিড়া ইউনিয়ন বিএনপির কর্মীদের নিয়ে কর্মী সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মো. রাজা জমাদ্দার, তার ভাই মজনু ও ছেলে লিটন মো. বশির আহমেদ শিকদারের উপর চড়াও হয়। 

সেখানে তাকে চেয়ার থেকে লাথি মেরে ফেলে দিয়ে ও পদপিষ্ঠ করে আহত করে। তাক্ষণিকভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠান হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাত সাড়ে ১০ টায় জাপান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতালে ১৯ দিনের মাথায় তাঁর মৃত্যু হয় বশির আহমেদ শিকদারের।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সিদ্দিকুর রহমান জানান, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে লাশের পোস্টমর্টেম করা হয়েছে।

পাথরঘাটা থানার ওসি মোল্লা মো. খবীর উদ্দিন কালের কন্ঠ'কে জানান, এঘটনায় গত ১ জানুয়ারী নিহত চেয়ারম্যানের ছেলে জয় একটি মারা-মারি ঘটনার মামলা করেন এখন সেটা হত্যা মামলায় রুপান্তর করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। মামলায় রাজা জমাদ্দার তাই ভাই মজনু ছেলে লিটনসহ ১১ জনের নাম ও অজ্ঞাত পরিচয়ের ১০/১২ জনের উল্লেখ আছে। তবে এ ঘটনায় কেউ গ্রেপ্তার হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি।


মন্তব্য