kalerkantho


সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

নাটোরে আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে যেতে একাংশকে বাধা

নাটোর প্রতিনিধি    

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ২৩:০০



নাটোরে আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে যেতে একাংশকে বাধা

'সংবিধান সুরক্ষা ও গণতন্ত্র রক্ষা দিবস' উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশ ও শোভাযাত্রায় জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি এবং জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদেও চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজানসহ আওয়ামী লীগের একাংশকে অংশগ্রহণে বাধা দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম  শিমুল সমর্থকরা।

এ নিয়ে দলটির মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে রাত ৮টায় উপজেলা চেয়ারম্যানের অফিসে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। তারা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

দলীয় সূত্র জানায়, 'সংবিধান সুরক্ষা ও গণতন্ত্র রক্ষা দিবস'  উপলক্ষে নাটোর সদর এবং পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নাটোর কানাইখালি পুরাতন বাস টার্মিনালে বিজয় সমাবেশের আয়োজন করা হয়। ওই সমাবেশের আগে শহরের কান্দিভিুটয়া অস্থায়ী আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে একটি বিজয় মিছিলে যোগ দিতে বেলা ৪টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি এবং জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান চেয়ারম্যান দুই শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে অস্থায়ী কার্যালয়ে হাজির হন। এ সময় সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল সমর্থক জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট শামছুল ইসলাম ও কামরুল ইসলাম তাদের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণে বাধা দেন। তাদেরকে সেখান থেকে চলে যাওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ সময় উমা চৌধুরী জলি, শরিফুল ইসলাম রমজান, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক চিত্তরঞ্জন সাহা, জেলা যুব লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাসিরুর রহমান খান চৌধুরী এহিয়া, জেলা পরিষদের সদস্য ও সাবেক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল আযম স্বপন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল সাকিব বাকীসহ অন্যরা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে না পেরে চলে আসেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে রাত ৮টায় উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজানের নিচাবাজার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান বলেন, 'এমপি শফিকুল ইসলাম শিমুল দলীয় কর্মকাণ্ডে একক আধিপত্য বিস্তার করেছেন। দলীয় কর্মসূচিতে আমরা অংশগ্রহণ করলেও এমপির নির্দেশে কর্মসূচিতে আমাদের অংশগ্রহণ করতে দেওয়া হয়নি। বিষয়টি আমরা আপনাদের মাধ্যমে দলীয় হাই কমান্ডকে জানাতে চাই।

জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি অভিযোগ করে বলেন, 'কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করার জন্য আমি এবং উপজেলা চেয়ারম্যান অস্থায়ী কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের নিয়ে হাজির হন। কিন্তু এ সময় আওয়ামী লীগ নেতা শামছুল ইসলাম ও কামরুল ইসলাম আমাদেরকে ডেকে কর্মসূচিতে অংশগ্রহণে বাধা দেন।

এ ব্যাপারে সামছুল ইসলামের মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তার নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। তবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ গোলাম মোর্ত্তজা বাবলু বলেন, 'বিভিন্ন সময় জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি উমা চৌধুরী এবং যুগ্ম সম্পাদক শরিফুল ইসলাম ইসলাম রমজান নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। এ অবস্থায় অনুষ্ঠানে এই দুইজন উপস্থিত থাকলে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে। এ কারণে তাদেরকে অনুষ্ঠানে থাকতে নিষেধ করা হয়েছিল। 


মন্তব্য