kalerkantho


ফরিদপুরে প্যানেল চেয়ারম্যানসহ ১৪জন জেলহাজতে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর   

১৪ মার্চ, ২০১৮ ২৩:২৯



ফরিদপুরে প্যানেল চেয়ারম্যানসহ ১৪জন জেলহাজতে

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার একটি মামলায় হাজিরা দিতে গিয়ে একটি ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান, দফাদার ও গ্রাম পুলিশসহ ১৪জনকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে ফরিদপুরের আদালত।

আজ বুধবার ফরিদপুরের তিন নম্বর আমলি আদালতের বিচারক মঈনুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

মামলার এজাহারসূত্রে জানা গেছে, গত মে মাসের শেষ সপ্তাহে আলফাডাঙ্গা উপজেলার পাঁচুড়িয়া গ্রামের বলাই সিকদারের দুই বিঘা জমির বাদাম জোর করে কেটে নেওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় থানায় মামলা না নেওয়ায় পরবর্তীকালে গত বছরের ৪ জুন বলাই সিকদার বাদী হয়ে ১৫ জনকে আসামি করে ফরিদপুরের তিন নম্বর আমলি আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার আসামি হিসেবে পাঁচুরিয়া ইউপির একজন প্যানেল চেয়ারম্যান, এক ইউপি সদস্য, দফাদার ও আট গ্রামপুলিশসহ মোট ১৪জন আজ দুপুরে আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করে। কিন্তু আদালত জামিনের আবেদন নাকচ করে তাদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এরা হলেন, প্যানেল চেয়ারম্যান মো. সাইফুল ইসলাম (৬০), ইউপি সদস্য আজগর শেখ (৪৫), দফাদার রেজাউল মোল্লা (৫০) এবং আট গ্রাম পুলিশ সলেমান সিকদার (৫২), নবীর সিকদার (৩০), গোপাল বিশ্বাস (৬০), ভবেন সরকার (৩০), পান্নু মিয়া (৪০), ওহিদ মিয়া (৪৫), গোলাম রসূল (৩৫)  ও ওয়াজেদ শেখ (৬০)। এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন, মুরাদ শেখ (৫৫), চুন্নু মোল্লা (৫৫) ও  আলী শেখ(৫৭)।

বাদী পক্ষের আইনজীবী রতন কুমার শরণ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আদালতের সমন পেয়ে আসামিরা আজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করেন। কিন্তু আদালত জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়ে আসামিদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

তিনি আরো বলেন, আদালতে এ মামলাটি দায়ের করা হলে আদালত আলফাডাঙ্গা থানায় মামলাটির তদন্ত দেন। থানা একটি দায়সারা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিলে আমরা নারাজি দেই। পরে আদালত এ মামলার তদন্ত ভার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভিস্টিগেশন (পিবিআই) কাছে দেন।


মন্তব্য