kalerkantho


জাজিরায় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের আধিপত্য বিস্তার

প্রতিপক্ষের বাড়ি ভাংচুর করতে গিয়ে ১জনের মৃত্যু

শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

১৬ মে, ২০১৮ ২৩:৩১



প্রতিপক্ষের বাড়ি ভাংচুর করতে গিয়ে ১জনের মৃত্যু

শরীয়তপুরের জাজিরায় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে প্রতিপক্ষের বাড়ি ভাংচুর করতে গিয়ে সাপের দংশনে ১জনের মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত জাজিরার বিলাশপুর মুলাই বেপারী কান্দি গ্রামের অন্তত ১০টি বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাটের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশের ধাওয়ায় জঙ্গল দিয়ে পালানোর সময় সাপের দংশনে আলী আজগর সরদার নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

তবে নিহতের পরিবারের দাবি, আলী আজগর ভাংচুর ও লুচপাট করেত যায়নি। সে ভাংচুর না করার পরামর্শ দিতে গিয়েছিল। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত জাজিরা থানায় কোনো মামলা হয়নি।

ক্ষতিগ্রস্ত সোবহান বেপারী, মজিবর বেপারীর স্ত্রী সালেহা বেগম ও জাজিরা থানা সুত্রে জানা গেছে, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার বিলাশপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল কুদ্দস বেপারীর সঙ্গে গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা হাজী আবু তাহের সরদার এবং তার সমর্থক জলিল ও ফারুক হাওলাদার গ্রুপের সঙ্গে আধিপত্য নিয়ে বিরোধ চলে আসছে।

গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বর্তমান চেয়ারম্যান হাজী আবু তাহের সরদারের সমর্থক বিলাশপুর মুলাই বেপারী কান্দি গ্রামের ফারুক হাওলাদার ও জলিল মাদবরের নির্দেশে ৩০-৪০জন মিলে সাবেক চেয়ারম্যানের সমর্থক মুলাই বেপারী কান্দির মজিবুর বেপারীর বাড়িঘরসহ অন্তত ১০টি বাড়িতে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট করে।

এ সময় বাড়িতে থাকা লোকজন বাধা দিলে তাদের শিশু সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকি দেয় হামলাকারিরা। এতে ভয়ে কেউ প্রতিহত করার চেষ্টা করেনি। এ ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক জাজিরা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

গফুর সরদারের বাড়ি ভাংচুরের সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হামলাকারিরা জঙ্গল দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় মুলাই বেপারী কান্দির নুরু সরদারের ছেলে আলী আজগর সরদার (৪০) কে বিশাক্ত সাপে দংশন করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ছোট ভাই সিরাজ সরদার বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান আবু তাহের সরদারের লোক ফারুক হাওলাদার ও জলিল মাদবর গ্রুপের সাথে সাবেক চেয়ারম্যান কুদ্দস বেপারীর সঙ্গে বিরোধ রয়েছে। গতকাল রাতে একপক্ষ অপর পক্ষের বাড়ি ঘর ভাংচুর করেছে। এ সময় আমার ভাই আলী আজগর সরদার বাড়ি ভাংচুর করতে যায়নি। সে ভাংচুর থামাতে গিয়েছিল। ফেরার পথে তাকে সাপে কামড় দিয়েছে। শরীয়তপুর হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিলাশপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারী বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যানের সমর্থকরা কোনো কারণ ছাড়াই তার নির্দেশে আমার সমর্থকদের বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে।

বর্তমান চেয়ারম্যান হাজী আবু তাহের সরদার বলেন, আমি বিনা প্রতিদ্বদ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। ইউনিয়নের সবাই আমার সমর্থক। আমার কোনো পক্ষ বিপক্ষ নেই। সাবেক চেয়ারম্যান আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে তা সঠিক নয়। সে আমার সম্মান ক্ষুণ্ণ করার জন্য মিথ্যা অভিযোগ করেছে। তার সাথেও আমার কোনো বিরোধ নেই।

জাজিরা থানার ওসি এনামুল হক বলেন, এলাকার আধিপত্য নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ দুই গ্রুপের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। ভাংচুরের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করি। এ ঘটনায় মামলা দিতে বলেছি। এখনো কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


মন্তব্য