kalerkantho


জামালপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিন শ্রমিকের মৃত্যু

জামালপুর প্রতিনিধি   

২৪ মে, ২০১৮ ১৯:৫৩



জামালপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিন শ্রমিকের মৃত্যু

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পল্লীবিদ্যুতের ঠিকাদারের তিনজন শ্রমিক নিহত ও পাঁচজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে ইসলামপুর পৌরসভার মধ্যদরিয়াবাদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ও আহতদের অধিকাংশের বাড়ি গাইবান্ধা জেলায় বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেলেও সঠিক পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জামালপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর আওতাধীন জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার মধ্যদরিয়াবাদ এলাকায় বিদ্যুতের নতুন সরবরাহ লাইনের খুঁটি পোতার কাজ চলছিল। কাজটি পেয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স নির্মাণ প্রকৌশল লি.।

আজ বৃহস্পতিবার বৃষ্টির সময় মধ্যদরিয়াবাদ গ্রামে কর্মরত আটজন শ্রমিক একটি খুঁটি পোতার সময় খুঁটিটি পাশের ১১ হাজার ভোল্টেজের সচল বিদ্যুৎ সঞ্চালন তারের ওপর পড়ে একটি তার ছিঁড়ে মাটিতে পড়ে।

এ সময় ভেজা খুঁটি ও সচল তারের স্পর্শে গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার হলুদিয়া গ্রামের তাহের আলী (৩০), ওবায়দুর রহমান (৩৪) ও জামালপুরের হাসান আলী (২৮) নামের তিনজন ঘটনাস্থলেই নিহত এবং হেলাল, জুয়েল, মিঠুন, সবিকুল ও রুবেল নামে আরো পাঁচজন গুরুতর আহত হয়। 

আহতদের ইসলামপুর উপজেলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাদের মধ্যে রুবেল ছাড়া বাকিদের মুমূর্ষু অবস্থায় জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মৃত ও গুরুতর আহত শ্রমিকদের নাম পাওয়া গেলেও সঠিক পরিচয় ও ঠিকানা পাওয়া যায়নি।

এ ঘটনার পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাউকে ঘটনাস্থল ও হাসপাতালে পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে যে, ঝামেলা এড়াতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজনরা কাছে ভিড়ছে না।

ইসলামপুর উপজেলা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সায়মুম শাহরিয়ার কালের কণ্ঠকে বলেন, আমাদের এখানে (ইসলামপুর হাসপাতাল) চিকিৎসাধীন রুবেল কিছুটা সুস্থ হওয়ার পথে। তার কাছ থেকেই জানা যাবে বাকিদের সঠিক পরিচয়। নিহত তিনজনের লাশ ইসলামপুর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নতুন সংযোগের কাজটির বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ আহাম্মেদ এ ঘটনা প্রসঙ্গে কালের কণ্ঠকে বলেন, মেসার্স নির্মাণ প্রকৌশল লি. নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাজ করার সময় এ ঘটনা ঘটে। সেখানে মাত্র দুটি খুঁটির কাজ চলছিল। কাজ করার সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু তারা আমাদের কাছে কোনো আবেদন করেনি। ফলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। একই সাথে নিহত ও আহতরা যাতে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ পায় সেই ব্যাপারেও চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

ইসলামপুর থানার ওসি মো. শাহীনুজ্জামান খান কালের কণ্ঠকে বলেন, নিহত তিনজন বিদ্যুৎ শ্রমিকের লাশ থানা থেকে গ্রহণ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে নিহতদের বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার হলুদিয়া গ্রামের হলেও এ ছাড়া বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি। তাদের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। নিহতদের ময়নাতদন্ত শেষে লাশ হস্তান্তরের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।  


মন্তব্য