kalerkantho


ফিরোজা বেগম স্বর্ণপদক পেলেন বন্যা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৭ জুলাই, ২০১৭ ১৯:০৪



ফিরোজা বেগম স্বর্ণপদক পেলেন বন্যা

বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নৃত্যকলা বিভাগের চেয়ারপারসন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ফিরোজা বেগম স্মৃতি স্বর্ণপদক লাভ করেছেন। এছাড়া বিএ সম্মান পরীক্ষায় সর্বোচ্চ ফল করায় সংগীত বিভাগের ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস নীলাকে নির্বাচিত করা হয়েছে ফিরোজা বেগম স্বর্ণপদকের জন্য।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন মিলনায়তনে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিল্পীকে স্বর্ণপদক ও পুরস্কার তুলে দেন। এসিআই ফাউন্ডেশনের সহায়তায় 'ফিরোজা বেগম স্মৃতি স্বর্ণপদক ট্রাস্ট ফান্ড' এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বিশ্ববিদ্যালয় কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবু মো. দেলোয়ার হোসেন। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এসিআই ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও ট্রাস্ট ফান্ডের দাতা এম আনিস উদ দৌলা, ঢাবি সংগীত বিভাগের চেয়ারপারসন (ভারপ্রাপ্ত) টুম্পা সমদ্দার। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এনামউজ্জামান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাবি উপাচার্য বলেন, ‘ফিরোজা বেগম শুধু নজরুল সংগীত নয়, তিনি আমাদের সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করে গেছেন। নজরুল ইসলামের কাছ থেকে সরাসরি গানের তালিম নিয়েছিলেন  ফিরোজা বেগম। তিনি ছিলেন বিদ্রোহী কবির বিদ্রোহী শিষ্য। ’

উপাচার্য বলেন, ‘বর্তমান পৃথিবী সংকটে আবর্তিত।

এই সংকট থেকে  মুক্তি পেতে হলে মানুষকে সংস্কৃতিমুখী করতে হবে। আজকে মানুষ অপরিচিত মানুষকেও হত্যা করছে। হত্যাকারীরা যদি সংস্কৃতিবান হতো; আমি নিশ্চিত তারা মানুষ হত্যা করতে পারতো না। এ সময় ট্রাস্টফান্ডের দাতা এসিআই গ্রুপকে সংস্কৃতির ক্ষেত্রে পদক দিয়ে অবদান রাখার জন্য ধন্যবাদ প্রদান করেন উপাচার্য।

পদকপ্রাপ্তির অভিব্যক্তি হিসেবে অধ্যাপক রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা বলেন, ‘একজন শিল্পীর জন্য যে কোনো ধরনের পুরস্কার পাওয়া অনেক বড় প্রাপ্তির। আজকের এ প্রাপ্তিটা আমার জন্য বিশেষ মর্যাদার। কারণ, যার নামে এই পুরস্কার ছোটবেলা থেকে আমি তার গুণমুগ্ধ শ্রোতা ছিলাম। ’ তিনি বলেন, ‘শিল্পীর সার্থকতা তার সংযমে এবং সরলতায়। এ ব্যাপারে ফিরোজা খুবই সচেতন ছিলেন। তিনি প্রতিটি গানের চরিত্র বুঝতেন। এ জন্য তার সময়ের অন্য পাঁচজন থেকে আলাদা হয়ে তিনি ফিরোজা বেগম হতে পেরেছিলেন। ’

স্মারক বক্তৃতায় এসিআই ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও ট্রাস্ট ফান্ডের দাতা এম আনিস উদ দৌলা বলেন, ‘নজরুলসংগীত প্রচারে ফিরোজা বেগম ছিলেন আপ্রাণকর্মী। কিন্তু তা সত্ত্বেও তিনি তার কাজ সম্পূর্ণ করে যেতে পারেননি। ’ তরুণ প্রজন্মকে তিনি ফিরোজা বেগমের অসমাপ্ত কাজ শেষ করার অনুরোধ জানান। সংস্কৃতিচর্চার প্রসারে এসিআই ফাউন্ডেশনের সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এর আগে সূচনা সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন বিশ্ববিদ্যালয় সংগীত ও নৃত্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা।


মন্তব্য