kalerkantho


গ্যালারি স্পটলাইটে শিল্পী উত্তমের চিত্র প্রদর্শনী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ অক্টোবর, ২০১৭ ১৮:৫৮



গ্যালারি স্পটলাইটে শিল্পী উত্তমের চিত্র প্রদর্শনী

'ক্ষুধা ও পূর্ণিমার চাঁদ' শিরোনামে শিল্পী উত্তম কুমার রায়ের দশম একক চিত্র প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। গত ২৯ আগস্ট সন্ধ্যা ৭টায় সপ্তাহব্যাপী এ প্রদর্শনী শুরু হয় রাজধানীর গালারি স্পটলাইটে।

প্রদর্শনীতে ক্ষুধা ও পূর্ণিমার সিরিজের ২৫টি কাজ স্থান পেয়েছে শিল্পীর।  প্রতিটি কাজে ক্যানভাসের ধরন আলাদা। উত্তপ্ত তাওয়ায় ছেঁকা রুটির মতো গোলাকার। যে ক্যানভাস আমরা দেখতে অভ্যস্ত তেমন নই। সব কাজই ক্যানভাসের ওপর অ্যাক্রিলিকে করা।

উত্তমের কাজে বরাবরই মানুষের মনোদৈহিক সন্তাপ। প্রবল দুঃসময়কে তিনি দেখাতে চান মানুষের আকৃতিতে। চারপাশে তিনি যা-ই দেখেন, তা-ই তাঁর ছবির উপজীব্য। উত্তম এবার তার ছবির উপজীব্য করেছেন রুটি আর অনাহারী মানুষের অবয়বকে।

বাদামি বৃত্তের ভেতর আশ্চর্য কালো বৃত্তের ভেতর থেকে উজিয়ে ওঠে সেসব অবয়ব। আশ্চর্য এক গভীর বোধ নিয়ে তার ছবির পাঠকরা  দেখতে থাকেন রুটির গায়ে অনাহারী মুখগুলো।

সুকান্তের সেই বিখ্যাত কবিতার চরণ ‘ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়, পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি' থেকে উত্তম এবারের প্রদর্শিত ছবিগুলো আঁকতে উৎসাহী হয়েছেন। ভরা জ্যোত্স্নায় পূর্ণিমার রাতে উত্তমের মন হয়ে ওঠে জাদু বাস্তবতার প্রতীক। হাতের রুটি তার চাঁদ হয়ে লেপটে থাকে আকাশের ললাটদেশে। অথবা আকাশের চাঁদই রুটি হয়ে ধরা দেয় তার ক্যানভাসে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে ছিলেন বুলবুল একাডেমি অব ফাইন আর্টস'র সভাপতি হাসানুর রহমান বাচ্চু ও একই প্রতিষ্ঠানের সম্পাদক ফজলুর রহমান।

অতিথিরা তাদের বক্তব্যে বলেন, শিল্পী উত্তমকে দেখে আসছি দীর্ঘদিন ধরে। অত্যন্ত পরিশ্রমী একজন শিল্পী তিনি। যেকোনো একটি মাধ্যম বা স্টাইল নিয়ে তিনি কখনো সন্তুষ্ট নন। আমাদের এ অঞ্চলের ভূ-রাজনীতি, পুঁজিবাদী ব্যবস্থাপনা তার ব্যক্তিসত্ত্বায় আলোড়ন তোলে। ওই আলোড়নের প্রকাশ থাকে তার চিত্রাবলিতে। সময়ের যন্ত্রণাকেই তিনি উপস্থাপন করেন প্রতীকী ব্যঞ্জনায়।

গ্যালারির পরিচালক ফারহানা হক বলেন, "উত্তমের এবারের কাজের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত ক্যানভাস, ছবির ফর্ম ও বিষয়বস্তু একেবারেই আলাদা। আমরা এর আগে তার কাজগুলোতে যে ধরন ও বিষয়বস্তুর উপস্থাপন দেখেছিলাম তাতে ভিন্নতা এসেছে। প্রদর্শিত কাজের ভেতর দিয়ে এবার নতুন এক উত্তমকে দেখতে পাই আমরা। তার সব ছবিতেই বিষয়বস্তুর প্রকরণ ও উপস্থাপনায় এসেছে বৈচিত্র্য। আসলে প্রকৃত শিল্পীর চরিত্রই এমন। ক্রমাগত নিজেকে অতিক্রম করে যাওয়া। উত্তম সেই ভ্রমণে নিরন্তর যাত্রী একজন। "

প্রদর্শনী চলবে ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।


মন্তব্য