kalerkantho


জাতীয় কবির গান ও কবিতায় জমজমাট ‘প্রাঙ্গণে মোর’ সন্ধ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক    

৪ নভেম্বর, ২০১৭ ২৩:০১



জাতীয় কবির গান ও কবিতায় জমজমাট ‘প্রাঙ্গণে মোর’ সন্ধ্যা

জন্মদিন আর প্রয়াণবার্ষিকী নয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের সৃষ্টিকর্ম প্রতিদিনই আমাদের প্রাণিত করে। ফলে তিনি প্রতিদিনই স্মরণীয়।

তাঁরই রচিত গান ও কবিতায় আজ শনিবার সন্ধ্যায় স্মরণ করা হয় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে। জাতীয় কবির গান ও কবিতা নিয়ে মনোজ্ঞ এ আয়োজনটির শিরোনাম ছিল ‘প্রাঙ্গণে মোর’। ভিন্নধর্মী গান ও কবিতার যুগলবন্দি এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সঙ্গীত চর্চা ও শিক্ষণের প্রতিষ্ঠান ‘বিভাস’।  

নিবেদিত শিল্পী ও আবৃত্তিশিল্পীদের তুলে ধরতে নিয়মিত অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে বিভাস। প্রতি মাসের প্রথম শনিবার রাজধানীর এলিফেন্ট রোডের চেইন বুকশপ দীপনপুরে আয়োজিত হয় গান ও কবিতার যুগলবন্দির আসর ‘প্রাঙ্গণে মোর’। আজ ছিল এ আয়োজনের দ্বিতীয় আসর। তাতে জাতীয় কবির গান গেয়ে শোনান বিশিষ্ট নজরুল সঙ্গীতী শিল্পী শারমিন সাথী ইসলাম ময়না। জাতীয় কবির কবিতা আবৃত্তি করেন আবৃত্তিশিল্পী তানভীর আহম্মেদ তমাল। এ ছাড়াও সমবেত জাতীয় কবির দুটি গান গেয়ে শোনায় বিভাসের শিক্ষার্থীরা।

অনুষ্ঠান শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিভাসের অধ্যক্ষ ও পরিচালক বরেণ্য রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী তানজীনা তমা। নিয়মিত অনুষ্ঠান আয়োজন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘চারদিকে ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে সাংস্কৃতিক চর্চা, বন্ধ হয়ে যাচ্ছে নানা সাংস্কৃতিক সংগঠন। পৃষ্ঠপোষকতা ও কার্যকর উদ্যোগের অভাবে সুস্থ্যধারার সংস্কৃতি চর্চা ব্যহত হচ্ছে নানা ভাবেই। সুস্থ্যধারার সংস্কৃতি চর্চার প্রসারে আমরা নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। এরই ধারাবাহিকতায় আয়োজন করেছি প্রাঙ্গণে মোর শীর্ষক নিয়মিত আসর।

নিবেদিত শিল্পী ও আবৃত্তিশিল্পীদের তুলে ধরার এ প্রয়াস অব্যাহত থাকবে জানিয়ে তানজীনা তমা জানান, প্রতিমাসের প্রথম শনিবার আমরা গান ও কবিতা নিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করি। প্রথম অনুষ্ঠানটি ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নিয়ে। দ্বিতীয় অনুষ্ঠানটি জাতীয় কবির কবিতা ও গান নিয়ে।

সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে শুরু হয় সুরের খেলা। অনুষ্ঠানের প্রথমপর্বে মঞ্চে আসেন বিভাসের একদল তরুণ শিল্পী। তাঁরা সমবেত কণ্ঠে গেয়ে শোনান জাতীয় কবির দুটি গান ‘মোমের পুতুল’ ও ‘রূমঝুম ঝুমঝুম’।  

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে শুরু হয় একক সঙ্গীতানুষ্ঠান ও আবৃত্তি পরিবেশনা। কখনো জাতীয় কবির গান, কখনো কবিতায় প্রাণোচ্ছল হয়ে উঠে গোটা আয়োজন।   প্রথমেই জাতীয় কবির ‘স্বদেশী গান’ কবিতা আবৃত্তি করেন তানভীর আহম্মেদ তমাল। তারপর নজরুলসঙ্গীত পরিবেশন করেন খ্যতিমান শিল্পী শারমিন সাথী ইসলাম ময়না।

তিনি গেয়ে শোনান ‘একি অপরূপ রূপে মা’ গানটি। তারপর শুরু হয় গান ও কবিতার অন্যরকম যুগলবন্দি। শারমিন সাথী ইসলাম ময়না একে একে গেয়ে শোনান ‘রসঘন শ্যাম কল্যাণ সুন্দর’, ‘পাষাণের ভাঙালে ঘুম’, ‘আমার কোন কূলে আজ’, ‘সাঝের পাখি ফিরল’, ‘সৃজন ছন্দে আনন্দে’, ‘আবার ভালোবাসার সাধ জাগে’, ‘সখি আমি না হয় মান করেছি’ ইত্যাদি জাতীয় কবির বিভিন্ন ঘরানার গান। তানভীর আহম্মেদ তমাল ভরাট কণ্ঠে আবৃত্তি করে শোনান জাতীয় কবির ‘ক্ষমা করো হযরত’, ‘ কুলি-মজুর’, ‘কবির মুক্তি’ ও ‘ভজন’ শিরোনামের কবিতা।

বিভাস মূলত সঙ্গীত শেখার প্রতিষ্ঠান। পাশাপাশি এ প্রতিষ্ঠানে রয়েছে নৃত্য, আবৃত্তি, তবলা, গিটার এবং চিত্রাঙ্গণ শেখার সর্বাধুনিক সুযোগ-সুবিধা। শিক্ষক হিসেবে এখানে যুক্ত আছেন খ্যাতিমান কিছু নিবেদিত দীক্ষাগুরু। রাজধানীর মিরপুরে অবস্থিত এ প্রতিষ্ঠানটি সুস্থ্য সঙ্গীত ও সংস্কৃতি বিকাশের গ্রহণ করেছে নানা কর্মসূচি। এরই ধারাবাহিকতায় নিয়মিত অনুষ্ঠানের আয়োজনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।


মন্তব্য