kalerkantho


ইমদাদুল হক মিলনসহ ৩৯ জনের শিশু সাহিত্য পুরস্কার লাভ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২০:২২



ইমদাদুল হক মিলনসহ ৩৯ জনের শিশু সাহিত্য পুরস্কার লাভ

অগ্রণী ব্যাংক-শিশু একাডেমি শিশু সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন কালের কণ্ঠের সম্পাদক কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনসহ ৩৯ লেখক ও শিল্পী। ১৪১৮ থেকে ১৪২৩ বঙ্গাব্দ পর্যন্ত শিশু সাহিত্যের সাত শাখায় প্রকাশিত সেরা বইয়ের উপর ভিত্তি করে এই পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী মার্চে পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে এই পুরস্কার তুলে দেয়া হবে। 

আজ রবিবার দুপুরে শিশু একাডেমির সভাকক্ষে একাডেমি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করা হয়। শিশু একাডেমির পরিচালক আনজীর লিটন এই নাম ঘোষণা করেন। এসময় শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান সেলিনা হোসেন, শিশু সাহিত্যিক সুজন বড়ুয়া, অগ্রণী ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক আবুল বাশার সেরনিয়াবাত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শিশু সাহিত্যের কবিতা-ছড়া-গান, গল্প-উপন্যাস-রূপকথা, অনুবাদ-ভ্রমণকাহিনী, জীবনী-প্রবন্ধ, স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তি, নাটক ও বই অলংকরণ এই সাত শাখায় প্রকাশিত সেরা বইকে শিশু সাহিত্য পুরস্কার দেয়া হয়। নানা কারণে এই পুরস্কার কার্যক্রম বিঘ্নিত হওয়ায় এ বছর ১৪১৮ থেকে ১৪২৩ সাল পর্যন্ত মোট ছয় বছরের সেরা ৩৯ লেখক ও শিল্পীকে এই পুরস্কার দেয়া হবে। 

পুরস্কার প্রাপ্তরা হলেন, ১৪১৮ বঙ্গাব্দে কবিতা-ছড়া-গানে যৌথভাবে রাশেদ রউফ ও খালেদ হোসাইন, গল্প-উপন্যাস-রূপকথায় মোহিত কামাল, বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ-জীবনী প্রবন্ধে কাজী কেয়া, স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে তপন চক্রবর্তী, বই অলংকরণে নাসিম আহমেদ। 

১৪১৯ বঙ্গাব্দে কবিতা-ছড়া-গানে হাসনাত আমজাদ, গল্প-উপন্যাস-রূপকথায় দন্তস্য রওশন, স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে শেখ আনোয়ার, নাটকে হানিফ খান, বই অলংকরণে মনিরুজ্জামান পলাশ। 

১৪২০ বঙ্গাব্দে কবিতা-ছড়া-গানে আখতার হুসেন, গল্প-উপন্যাস-রূপকথায় দীপু মাহমুদ, বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ-জীবনী প্রবন্ধে সোহেল আমিনবাবু, অনুবাদ ভ্রমণকাহিনীতে ফারুক হোসেন, নাটকে আ শ ম বাবর আলী, বই অলংকরণে বিপ্লব চক্রবর্তী। 

১৪২১  বঙ্গাব্দে কবিতা-ছড়া-গানে রোমেন রায়হান, গল্প-উপন্যাস-রূপকথায় ইমতিয়ার শামীম, বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ-জীবনী প্রবন্ধে তপন বাগচী, স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে মনসুর আজিজ, বই অলংকরণে মোমিন উদ্দীন খালেদ। 

১৪২২ বঙ্গাব্দে কবিতা-ছড়া-গানে পলাশ মাহবুব, গল্প-উপন্যাস-রূপকথায় ইমদাদুল হক মিলন, বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ-জীবনী প্রবন্ধে রীতা ভৌমিক, স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে ড. আলী আসগর, অনুবাদ-ভ্রমণকাহিনীতে যৌথভাবে মাহফুজুর রহমান ও হাসান খুরশীদ রুমী, নাটকে আশিক মুস্তাফা, বই অলংকরণে সব্যসাচী মিস্ত্রী। 

১৪২৩ বঙ্গাব্দে কবিতা-ছড়া-গানে যৌথভাবে মারুফুল ইসলাম ও আহমদ উলস্নাহ, গল্প-উপন্যাস-রূপকথায় মোশতাক আহমেদ, বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ-জীবনী প্রবন্ধে শ্যামলী নাসরীন চৌধুরী, স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে যৌথভাবে ডা. মিজানুর রহমান কলেস্নাল ও মশিউর রহমান, অনুবাদ-ভ্রমণকাহিনীতে জামিল বিন সিদ্দিক, নাটকে আবুল মোমেন, বই অলংকরণে উত্তম সেন। 

পুরস্কার প্রদানের জন্য সংবাদপত্রে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বই আহবান করা হয়। প্রাপ্ত বইগুলো বিচারের জন্য দেশের খ্যতিমান কবি, সাহিত্যিক, শিল্পীদের সমন্বয়ে ১৮ সদস্যের বিচারক প্যানেল গঠন করা হয়। প্যানেলের বিচারকরা বইয়ের রচনাশৈলী, সাহিত্যমান ও অলংকরণ বিচার করে রায় দেন। বিচারকদের রায় পাওয়ার পরে বোর্ড অব ম্যানেজমেন্ট অনুমোদন করে পুরস্কারের ফল ঘোষণা করেন।


মন্তব্য