kalerkantho


পেশোয়ারে নির্বাচনী সমাবেশে তালেবানের আত্মঘাতী হামলা

এএনপি প্রার্থীসহ নিহত ২০

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



পাকিস্তানের পেশোয়ারে এক নির্বাচনী সমাবেশে মঙ্গলবার রাতে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ৬০ জনের বেশি। হামলায় আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির (এএনপি) স্থানীয় জ্যেষ্ঠ নেতা হারুন বিলৌর নিহত হয়েছেন। আগামী ২৫ জুলাই দেশটিতে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে এটাই প্রথম বোমা হামলার ঘটনা ঘটল। নিষিদ্ধ ঘোষিত পাকিস্তানভিত্তিক তালেবান গোষ্ঠী তেহরিক ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি) হামলার দায় স্বীকার করেছে।

কর্মকর্তারা জানান, মঙ্গলবার রাতে সংঘটিত বোমা বিস্ফোরণে এএনপি নেতা হারুন বিলৌর নিহত হয়েছেন। তিনি পেশোয়ারের পিকে-৭৮ আসনের প্রার্থী ছিলেন। বেশ কিছুদিন যাবৎ জঙ্গিগোষ্ঠী তালেবানদের আক্রমণের শিকার হয়ে আসছে এএনপি। এএনপির নির্বাচনী সমাবেশে হামলাটি চালানো হয়।

এর আগে দেশটির ২০১৩ সালের জাতীয় নির্বাচনের সময়ও তালেবান হামলার প্রধান লক্ষ্য ছিল এএনপি। ওই সময় এক আত্মঘাতী হামলায় এএনপির জ্যেষ্ঠ নেতা বশির বিলৌর নিহত হয়েছিলেন। এবারের হামলায় তাঁর ছেলে হারুন বিলৌর নিহত হলেন।

পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মুখপাত্র আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে বলে বক্তব্য রাখার পর পরই এই বোমা হামলা ঘটে।

পেশোয়ারের পুলিশপ্রধান কাজি জামেল গতকাল বুধবার জানান, নিহতের সংখ্যা ২০ জন ও আহতের সংখ্যা ৬৩ জন। আহতদের মধ্যে ৩৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বোমা নিষ্ক্রিয় দলের নেতা শাফকাত মালিক বলেন, ১৬ বছর বয়সের এক কিশোর বা কিশোরী শরীরে আট কিলোগ্রাম ওজনের বিস্ফোরক, তিন কিলোগ্রাম ওজনের প্লেট, বল ও বিয়ারিং বহন করছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন পাকিস্তানের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি সর্দার মহম্মদ রাজা খান। একই সঙ্গে ঘটনাকে নিরাপত্তা বিভাগের দুর্বলতা বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। কমিশনার বলেছেন, স্বচ্ছ নির্বাচনপ্রক্রিয়া বানচালের লক্ষ্যে এই বিস্ফোরণ একটি ষড়যন্ত্র। সূত্র : এএফপি।

 



মন্তব্য