kalerkantho


ঢাবিতে 'ফাউ' খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে শিক্ষার্থী ছুরিকাহত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১১ অক্টোবর, ২০১৭ ০২:০১



ঢাবিতে 'ফাউ' খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে শিক্ষার্থী ছুরিকাহত

হলের মেসে খাবার বেশি করে নিতে বাঁধা দেওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুলস্নাহ মুসলিম হলের এক ছাত্রকে চাকু মেরেছে একই হলের প্রাক্তন ছাত্র। মঙ্গলবার রাত পৌনে ১১টার দিকে হলের মেসের ভেতরে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ছাত্রের নাম ওমর ফারুক। তিনি পপুলেশন সাইন্সে বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। চলতি মাসে হল মেসের ম্যানেজারে দায়িত্ব পালন করছে ওমর ফারুক। ফারুকের পেটের ডান পাশে চাকু মারায় গুরম্নত্ব আহত হয়। এছাড়াও তার ডান হাতের তিন স্থানে চাকু আঘাত লাগে। বর্তমানে সে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি রয়েছেন। অভিযুক্ত ছাত্র আবু জোবায়ের তালহা ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের দর্শন বিভাগের সাবেক ছাত্র। হলে ১৬৬ নম্বর কক্ষে থাকতো। ঘটনার পরে আবু জোবায়ের তালহা হল থেকে পালিয়ে গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী হলের মেস কমিটির সদস্য বদিউজ্জামান সুফি বলেন, দুপুরে  হলের মেস থেকে আবু জোবায়ের তালহার খাবার নিতে আসা তার ছোট (ভর্তি পরীক্ষার্থী)। কিন্তু বেশি করে খাবার নেওয়ার বাঁধা দেয় মেস ম্যানেজার ওমর ফারুক। পরে তালহার ছোট ভাই তাকে গিয়ে এ ঘটনার কথা বলে তালহা ওমর ফারুকের ৭৯ নম্বর কক্ষে যায়। এর পরে রাত ১০ টার দিকে মেসে ফারুকে পেলে চাকু মারে তালহা।

ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক আমদাজ আলী কালের কণ্ঠকে বলেন, দুপুরে মেসে খাবার নেওয়া নিয়ে ঝামেলা হওয়ায় রাতে ওমর ফারুককে চাকু মেরেছে।  ফারুককে এখন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটার গুরুতর আহত অবস্থা চিকিত্সা নিচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত আবু জোবায়ের তালহা বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি ।

এ দিকে হলে প্রাধ্যাক্ষ অধ্যাপক মাহবুবুল আলম জোর্য়াদার বলেন, এ ঘটনা পরে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। একদিনে মধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে ঘটনায় জড়িত ছাত্রের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য