kalerkantho


দোহারে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান

পরাজয় জেনে বিএনপি নির্বাচনে না আসার বাহানা করছে

দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ২১:১৪



পরাজয় জেনে বিএনপি নির্বাচনে না আসার বাহানা করছে

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, ‘নিশ্চিত পরাজয় জেনে বিএনপি নির্বাচনে না আসার বিভিন্ন বাহানা করছে। বিএনপির নির্বাচনে আসা বা না আসা নিয়ে আর কিছু যায় আসে না। বাংলাদেশে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে।’

আজ মঙ্গলবার ঢাকার দোহার উপজেলার জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগ আয়োজিত ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমানের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সালমান এফ রহমান বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নে বিশ্বাসী। দেশে উন্নয়ন কাজ অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট দিয়ে আবার আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে। সুশীল সমাজ টকশোতে বসে বলে, ফেয়ার ইলেকশন হলে আওয়ামী লীগ জিততে পারবে না। এটাও একটা ষড়যন্ত্র। আমরা জরিপ করেছি, আমাদের জরিপে আওয়ামী লীগ ৭৫ শতাংশ ভোট পাবে আর বিএনপি পাবে ২৫ শতাংশ।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের বড় শত্রু হচ্ছে আওয়ামী লীগ। আমাদের ভেতরে ঐক্য নেই। শুধু আওয়ামী লীগের ভোটে আমরা জিততে পারব না। সাধারণ ভোটারদের মন জয় করে আমাদের ভোট আনতে হবে। যারা দল করে না, যারা নিরপেক্ষ তাদের কাছে গিয়ে সরকারের উন্নয়নের বার্তা পৌঁছে দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান বলেন, জনপ্রতিনিধি না হয়েও সালমান এফ রহমান দোহারের উন্নয়নে অতীতেও কাজ করেছেন এবং বর্তমানেও করছেন। ইতিমধ্যে দোহার ও নবাবগঞ্জ এলাকার বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্প তিনি প্রধানমন্ত্রীকে বলে পাশ করিয়েছেন। যদি তিনি আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে বিজয়ী হতে পারেন তবে উন্নয়নের মাধ্যমে দোহার-নবাবগঞ্জ এলাকার সামগ্রিক চিত্রই পাল্টে যাবে।   

জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মোশারফ হোসেন শান্তর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন নিবন্ধন পরিদপ্তরের মহা পরিদর্শক ড. কে.এম আব্দুল মান্নান, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজীর আহম্মেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বজলুর রহমান কামাল, সাংগঠনিক সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুন, উপজেলা চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাইদুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবুল, সাধারণ সম্পাদক আলী আহসান খোকন শিকদার, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ আনারকলি পুতুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক গিয়াসউদ্দিন আল-মামুন, সাংগঠনিক সম্পাদক আওলাদ হোসেন, জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তাপস কুমার নন্দী, সাবেক ছাত্রনেতা সাজ্জাত হোসেন সুরুজ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক লায়ন আব্দুস সালাম চৌধুরি, জেলা পরিষদের সদস্য শাহজাহান মোল্লা। 


মন্তব্য