kalerkantho


নূতনের কেতন

দুই বাংলায় সোমচন্দা

রবিউল ইসলাম জীবন   

৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০৯:৫৪



দুই বাংলায় সোমচন্দা

ছবি তুলেছেন শীথিল

সোমচন্দার দাদা টোপা দত্ত ছিলেন শো অ্যারেঞ্জার। মান্না দে, শ্যামল মিত্র, লতা মুঙ্গেশকরসহ অনেক বিখ্যাত শিল্পীর শোর আয়োজন করতেন।

এর ফলে প্রায়ই সোমচন্দাদের ভবানীপুরের বাড়িতে গানের রিহার্সালে বসতেন শিল্পীরা। কেউ বাজাতেন, কেউ বা গলা সাধতেন। এসব দেখতে দেখতেই একসময় গান শুরু করেন সোমচন্দার বাবা সোমনাথ ভট্টচার্য, যা পরে ছড়িয়ে যায় সোমচন্দার মধ্যেও। গায়িকা বলেন, 'এমন একটি পরিবারে জন্ম নিয়েছি গানটা আমার মধ্যে অটোমেটিক্যালি চলে এসেছে। পরিবারের সবার ইচ্ছা ছিল আমিও গান করি। তাইতো পাঁচ বছর বয়সেই ইন্ডিয়ান ক্লাসিক্যাল দিয়ে হাতেখড়ি। পরে অন্যান্য ধারার সংগীতও রপ্ত করেছি। হৈমন্তী শুক্লার কাছেও শিখেছি দুই বছর। ' ২০১০ সালে জি বাংলার 'সারেগামাপা' প্রতিযোগিতার ফাইনালিস্ট হয়ে সবাইকে চমকে দেন সোমচন্দা।

একই বছর 'ইন্ডিয়ান আইডল : সিজন ফাইভ'-এ নাম লিখিয়েও সেরা দশে জায়গা করেন নেন।

২০১১ সালে সৌমিক চক্রবর্তীকে সঙ্গে নিয়ে কসমিক হারমোনি থেকে প্রকাশ করেন নিজের প্রথম অ্যালবাম 'হঠাত্ দেখা'। সেটি শ্রোতারা গ্রহণও করে বেশ। সে বছরই আদনান অডিও থেকে প্রকাশ করেন রবীন্দ্রসংগীতের অ্যালবাম 'আমার রবি বেলা'।

অডিওর তুলনায় প্লেব্যাকই বেশি করেছেন। 'এখন পর্যন্ত চলচ্চিত্রের ৩০-৪০টি গানে কণ্ঠ দিয়েছি। এই মাধ্যমে গাওয়াটা আমি এনজয়ও করছি। ' এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সুরজিত্ ধরের 'বৃত্ত' ও 'মেঘ রোদ্দুর', মিলন ভৌমিকের 'মন বলে প্রিয়া প্রিয়া', অরিন্দম শীলের 'দুর্গা সহায়', হরনাথ চক্রবর্তীর 'ছায়াময়' প্রভৃতি। ৮ ডিসেম্বর মুক্তি পেতে যাওয়া সঞ্জয় বর্ধনের 'চৌধুরী রাজবাড়ি'তেও গেয়েছেন। মিউজিক্যাল সিরিয়াল ‘ইচ্ছে নদী’র সব গানে কণ্ঠ দিয়েছেন দেবজ্যোতি মিশ্রর সংগীতে।

অডিওতেও থেমে নেই। সামনে আশা অডিও থেকে আসছে দুটি সিঙ্গল। একটির শিরোনাম- 'একটা কবিতায় লেখা দুটো নাম'। শ্রী ভেংকটেশ ফিল্মের ব্যানারে দুটি গান বানাচ্ছেন। প্রসেনের কথায় সুর-সংগীত করছেন শোভন গাঙ্গুলী। আগামী ভালোবাসা দিবসেই গানগুলো প্রকাশ পাবে।

কমলেশ্বর মুখার্জির 'মিডনাইট সিটি' দিয়ে নাম লেখাতে যাচ্ছেন অভিনয়েও। এ নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত সোমচন্দা, 'ছবিতে আমি একজন মিউজিশিয়ানের চরিত্রে অভিনয় করব। গল্পটাও চমত্কার। আর তাই কমলদার প্রস্তাবে না করার সুযোগ ছিল না। কিছুদিনের মধ্যেই শুটিং শুরু হবে। একই ছবিতে গান গাইব আবার অভিনয়ও করব- এটা নিশ্চয়ই দারুণ একটা অভিজ্ঞতা হবে। '

এবার সোমচন্দা বাংলাদেশে এসেছেন ঢাকা ক্লাবে শো করতে। এ নিয়ে বাংলাদেশে ১০টির বেশি অনুষ্ঠানে গেয়েছেন বলে জানান। প্রথম গেয়েছেন ২০১১ সালে ফরিদপুরের একটি অনুষ্ঠানে। 'বাংলাদেশে আসতে আসতে এখানকার মানুষ ও প্রকৃতির প্রতি অন্য রকম একটা ভালো লাগা তৈরি হয়েছে। এ দেশে গাওয়াটা বেশ উপভোগ করি। চট্টগ্রাম ও সিলেটে গিয়েও গান করার ইচ্ছা আমার। '

বাংলাদেশের তিনজন শিল্পীর সঙ্গে একটি করে দ্বৈত গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। ফাহিম ইসলামের সঙ্গে 'পিছুটান', রাজের সঙ্গে 'তারা হারালো' এবং ইলিয়াস হোসাইনের সঙ্গে 'বোঝে না সে বোঝে না'। শেষের গানটি এবার একক ভার্সন করে ভিডিও আকারে প্রকাশ করছেন সিডি চয়েসের ব্যানারে। "বাংলাদেশের শিল্পীরা অনেক মেধাবী। এখানকার শিল্পীদের সঙ্গে কাজ করতে পারাটা আনন্দের। আশা করি 'বোঝে না সে বোঝে না'র নতুন ভার্সনটিও শ্রোতাদের ভালো লাগবে। "

এত দিন বাংলা গানে কণ্ঠ দিলেও প্রথমবারের মতো হিন্দি গানও গাইবেন সোমচন্দা। শাহরুখ খানের প্রথম ছবি 'দিওয়ানা'র 'অ্যায়সি দিওয়াঙ্গি' রিক্রিয়েশন করে গাইবেন। প্রকাশ করবেন নতুন বছরের শুরুতে। মৌলিক হিন্দি গানও করছেন প্রথমবারের মতো। মজার বিষয় হলো, এটির সুর ও সংগীতায়োজন করছেন সোমচন্দা নিজেই। 'ছোটবেলা থেকেই হিন্দি গান করার অভ্যাস। ইচ্ছা ছিল কখনো সুযোগ পেলে নিজেও কিছু গান বানাব। এবার শুরু করতে পেরে ভালো লাগছে। '

 


মন্তব্য