kalerkantho


ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব দেশি-বিদেশিদের পদচারণায় সরগরম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ১১:৩৮



ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব দেশি-বিদেশিদের পদচারণায় সরগরম

ভারতের ছবি হাফ টিকেট দর্শকদের নিকট বেশ গ্রহণযোগ্য মনে হয়েছে

পাবলিক লাইব্রেরী চত্বর এখন দেশি-বিদেশিদের পদচারণায় সরগরম। ষোড়শ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সুবাদে বিকেল হলেই লোকে লোকারণ্য হয়ে উঠছে এ চত্বর। তবে উৎসবে সকাল থেকেই চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হচ্ছে।

নানা বয়সী মানুষ ১২ জানুয়ারি থেকে উৎসব আমেজে ছবি দেখতে ছুটে আসছে এ চত্বরে। বৃহস্পতিবারও এর ব্যত্যয় ঘটেনি। দর্শনার্থী ছাড়াও আজ এ চলচ্চিত্র উৎসবে তৌকির আহমেদ, জাপানী পরিচালক কি কি সুগিনো, উৎসবের জুরি বোর্ড সদস্য ইটালীর আনা কোচিয়ারেলাসহ আরো অনেককে দেখা গেছে।

গতকাল উৎসবের সপ্তম দিনে মূল ভেন্যু পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান মিলনায়তনে ৫টি ছবি প্রদর্শিত হয়েছে। সকাল ১০টায় ভারতীয় পরিচালক সমিত কাক্কাদের ‘হাফ টিকেট’, দুপুর ১টায় মঙ্গোলিয়ার পরিচালক ইনখাদালাই মিজিদ্দালাইয়ের ছবি ‘ইউ উইল নেভার ওয়াক এলোন’, বিকেল ৩টায় ইজিপ্টের নারী পরিচালক কমলা আবুজিকরির ‘এ ডে ফর ওমেন’, বিকেল সাড়ে ৫টায় ভারতীয় পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্তর ‘টোপ’ ও সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ইরানী পরিচালক কাজেম মোল্লা’র ছবি ‘কুপাল’ প্রদর্শিত হয়।

গতকাল উৎসবের অন্য চারটি ভেন্যু জাতীয় জাদুঘরের মূল মিলনায়তন, কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তন, ধানমন্ডির অঁলিয়স ফ্রঁসেজ এবং রাশিয়ান কালচারাল সেন্টারে আরো ৫টি করে ২০ ছবি প্রদর্শিত হয়েছে।

৯ দিনব্যাপী এ ষোড়শ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব চলবে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত। উৎসবে স্বাগতিক বাংলাদেশসহ ৬৪টি দেশের ২১৬টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হচ্ছে। উৎসবে অংশগ্রহণকারী উল্লেখযোগ্য দেশের তালিকায় আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, পর্তুগাল, চেক রিপাবলিক, মাদাগাস্কার, থাইল্যান্ড, মঙ্গোলিয়া, সার্বিয়া, তুর্কি, স্পেন, জর্ডান ও প্যালেস্টাইন রয়েছে।

এ উৎসবে এশিয়ান কম্পিটিশন বিভাগ, রেস্ট্রোস্পেক্টিভ, বাংলাদেশ প্যানারোমা, সিনেমা অফ দ্যা ওয়ার্ল্ড, চিলড্রেনস ফিল্ম, স্পিরিচুয়াল ফিল্মস, উইমেন ফিল্ম মেকার সেশনসহ শর্ট এ্যান্ড ইন্ডিপেনডেন্ট এ আটটি ক্যাটাগরিতে চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হচ্ছে।
এবার এশিয়ান কম্পিটিশন বিভাগে ১৫টি চলচ্চিত্র প্রতিযোগিতা করছে। ৫ সদস্য বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক মানের একটি জুরি বোর্ড ওই চলচ্চিত্রগুলোর মধ্য থেকে এক বা একাধিক চলচ্চিত্রকে ২০ জানুয়ারি সমাপনী দিনে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসেবে ঘোষণা করবেন। এ বছর উৎসবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের জন্য পুরষ্কার হিসেবে থাকছে এক লক্ষ টাকাসহ একটি ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট। এছাড়া শ্রেষ্ঠ অভিনেতা-অভিনেত্রী, শ্রেষ্ঠ চিত্র গ্রাহক ও শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যের জন্যও পুরষ্কার থাকবে।


মন্তব্য