kalerkantho


শিশু রাফসানের কণ্ঠে যেন ফিরে এল নাইন্টিজ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ১৮:১৬



শিশু রাফসানের কণ্ঠে যেন ফিরে এল নাইন্টিজ

নব্বই দশকের ব্যান্ড সঙ্গীত এদেশে কতটা সমৃদ্ধ ছিল তা প্রমাণ করল শিশু রাফসান। লতিফুল ইসলাম শিবলী লিখেছিলেন, 'হাসতে দেখো গাইতে দেখো, অনেক কথায় মুখর আমায় দেখো...' এলবিআরবি ও ফিলিংস (বর্তমানে নগর বাউল) ব্যান্ডের যৌথ অ্যালবাম  ক্যাপসুল ৫০০ এমজি।

তুমুল এই অ্যালবাম দেশব্যাপী সাড়া ফেলে দেয়। সাড়া ফেলে আইয়ুব বাচ্চুর কণ্ঠে শীর্ষ সঙ্গীতটি। সেই সময় তারুণ্যের মুখে মুখে ফেরে- 'হাসতে দেখো গাইতে দেখো...'

বিগত হয়েছে নাইন্টিজ। নব্বইয়ের দশকের গানগুলোর কথা অনেকেই ভুলে গেছে, ভুলে গেছে সঙ্গীতের স্বর্ণসময়কে। যদি এফএম রেডিও শূন্য দশকের পরবর্তী কিছু সময় নব্বই দশকের কিছু গান তুলে ধরেছিল কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে নব্বই যেন অতলে চলে গেছে। এখন তো দেখা হয় কত ভিউ হলো, গান কতজন শুনলো না শুনলো সেটা বিষয় না। মানুষের মুখেই নেই যে গান সে গান ভিউ দিয়ে হিট বলে দাবি করছে অডিও কম্পানি।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায় খুব সাদামাটা আয়োজনে একটি ছোট্ট শিশু গাইছেন- ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো, অনেক কথায় মুখর আমায় দেখো। দেখো না কেউ, হাসি শেষে নিরবতা।  শিশুটির সঙ্গে দুটি গিটার, একটি বাঁশি ও পারকাশন বাজাচ্ছেন সঙ্গীরা। এই গান খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়া। নেটিজেনরা টের পায় নব্বইয়ের দশকের গানের জনপ্রিয়তার আমেজ।

১৩ এপ্রিল গানটি প্রথমে ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউবে প্রকাশিত হয়। এরপর তা চলে আসে ফেসবুকে। এরপরেই ঝড়ের গতিতে শেয়ার হতে থাকে। মুহূর্তই ছড়িয়ে পড়ে। রাফসানের যেমন প্রশংসা শুরু হয় তেমনি শুরু হয় এলআরবি বন্দনা আর গীতিকার শিবলীর নাম। অনেকেই মন্তব্য করেন শিশু রাফসানের কণ্ঠেই যেন ফিরলো নাইন্টিজ।
 
পুরো নাম রাফসানুল ইসলাম। তবে সবাই রাফসান বলেই ডাকে আর জানে। নেত্রকোণার মোক্তার পাড়ায় থাকেন তিনি। পড়াশুনা করছেন সপ্তম শ্রেণিতে। তার পরিবারের সদস্য সংখ্যা চার জন। তার দুই ভাই ও বাবা-মা। রাফসানের বাবা ব্যবসা করেন, মা গৃহিণী।

গানটি নিয়ে রাফসান বলেন, আমরা মোট ১০ জন ‘ধোঁয়া’ ব্যান্ডের সদস্য। এই বছরই এই ব্যান্ডে যোগ দিয়েছি। তবে ২০১৭ সালের ১৫ মার্চ থেকেই ব্যান্ডটি চলছে। এর প্রতিষ্ঠা করেছেন কার্জন রায়। আমরা সবাই একই এলাকার। সেই সুবাদেই একসঙ্গে গান করি।

এলাকায় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান করে থাকে ‘ধোঁয়া’ ব্যান্ডটি। এছাড়া ইউটিউবে এর একটি চ্যানেল রয়েছে। সেখানেও আছে আমাদের কভার করা বেশ কিছু গান।

রাফসানের কণ্ঠে ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো’ গানটি শুনে আইয়ুব বাচ্চু প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন। গীতিকার লতিফুল ইসলাম শিবলী বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, এতটুকু শিশু কী এক অদ্ভুত ক্ষমতায় গেয়েছে। নব্বইয়ের দশকের গানগুলো কী পরিমাণ জনপ্রিয় তা তিন প্রজন্ম পর যারা আগ্রহী ঠিকই খুঁজে বের করছে।


মন্তব্য