kalerkantho


রেকর্ডভাঙা শীত

ব্রত রায়

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



এই ঘটনা শরত্কালের,

আদিবাসীর গ্রামে;

গ্রামপ্রধানের বাড়ির সামনে

দলটা এসে থামে।

দলের মানুষ প্রশ্ন করে

তাদের নেতার কাছে

শীত-বিষয়ে তার কাছে কি

খবর কিছু আছে?

‘এই বছরে শীত কি বেশি

পড়বে, নাকি কম?’

এসব তথ্য সরবরাহে

তিনিই তো সক্ষম!

সেই মোতাবেক গ্রামের মানুষ

করবে কাঠের জোগাড়

ইচ্ছা কারোর নেই তো মোটেই

ঠাণ্ডা লেগে ভোগার!

আবহাওয়ার অফিস থেকে

নিলেন নেতা খবর

‘শীত কি এবার অল্প হবে,

কিংবা হবে জবর?’

‘শীত এ বছর ভালোই পড়বে’—

অফিস থেকে বলে

গ্রামের মানুষ ঠিক সেভাবেই

কাঠের খোঁজে চলে!

হপ্তা দুয়েক পরে আবার

করেন নেতা ফোন,

শৈত্যপাতের ভাব বুঝে হোক

সকল আয়োজন!

অফিস থেকে জবাব আসে,

‘এই বছরের শীত

একটুখানি কঠিন রূপেই

হবে উপস্থিত!’

গ্রামের লোকের কাছে গিয়ে

নেতা খবর জানান

‘সবাই আরো বেশি বেশি

কাঠ-কুটো সব আনান!’

আরো গেল সপ্তাহ দুই

ফোন করেছেন ফের

‘লেটেস্ট কোনো খবর আছে

শৈত্য প্রবাহের?’

‘প্রচন্ড শীত হবে এবার’

অফিস জানায় তাকে

‘কেমন করে শিওর হলেন?’

নেতাও প্রশ্ন রাখে!

‘এই ব্যাপারে দরকারি সব

তথ্য আছে হাতে

রেকর্ডভাঙা শীত আসন্ন—

সন্দেহ নাই তাতে!

আমরা খবর পাচ্ছি এবার

আদিবাসীর দল

হন্যে হয়ে খুঁজছে শীতের

বিভিন্ন সস্বল!

শুনছি ওরা করছে উজাড়

বনের সকল কাঠ

বৃক্ষশূন্য যাচ্ছে হয়ে

পুরাই এ তল্লাট!’


মন্তব্য