kalerkantho


জোকস: যাদের কাছে প্রেম-ভালোবাসাও সরকারি চাকরির মতো...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ অক্টোবর, ২০১৭ ১৬:১৩



জোকস: যাদের কাছে প্রেম-ভালোবাসাও সরকারি চাকরির মতো...

                                                (১) 
কীরে পল্টু মুখ গোমরা করে রেখেছিস কেন?

কী আর করমু ক? নিজের বাড়ির লোকই যখন মাথা খারাপ কইরা রাখে?

ঘটনা কি খুইলা ক?

বাড়ির বাইরে সময় কাটালে বলে বাউণ্ডুলে-আওয়ারা, আর বাড়িতে থাকলে বলে ঘরকুনো, অকর্মার ধারী...

                                                (২) 
এক জরিপে জানা গেছে, স্ত্রীরা অনেকেই সন্তানদের চিৎকার করে বকাঝকা করেন যার পেছনে অন্যতম কারণ হচ্ছে- এর দ্বারা স্বামীকেও ভয় ধরানো।

                                                (৩) ‍
তোর বাম চোখ এমন ফুলে আছে কেন রে, মুরাদ?

কাল আমার বৌ পারিশা খাতুনের জন্মদিন ছিল।

 

তো?

জন্মদিনের কেক-এ লিখতে দিয়েছিলাম: ‘হ্যাপি বার্থ ডে পারিশা খাতুন’। কিন্তু বাসায় ফিরে কেক খুলে মোমবাতি লাগাতে গিয়ে দেখি তাতে লেখা: হ্যাপি বার্থ ডে পেরেশান খাতুন! 

বলিস কী? তারপর!

কেকের ছবি তোলার জন্য ওর হাতে মোবাইল ফোন ছিল। সেটা দিয়েই মারলো... উঁ উঁ উঁ...

                                                (৪)
শিক্ষক: আগামীকাল সূর্যের ওপর তোমাদের পড়াবো। সবাই উপস্থিত থাকবে কিন্তু।

পল্টু: স্যার, আমি থাকতে পারবো না!

শিক্ষক: কেন কেন? এতবড় সাহস তোর!

পল্টু: স্যার, আপনি তো সূর্যের ওপর ক্লাস নিতে যাচ্ছেন। অত গরম জায়গায় তো সবাই পুড়ে মরবে...

                                                (৫)
কিছু কিছু মানুষের কাছে প্রেম-ভালোবাসাও সরকারি চাকরির মতো। তাদের দ্বারা ফাইলও আগে বাড়ে পারে না আর মামলাও বন্ধ হতে চায় না- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে

                                                (৬)
স্কুলে আসা বন্ধ করে দিলি দোস্ত! ঘটনা কী?

এখন থেকে বাবার সব কথা মান্য করতে শুরু করেছি।

তোর বাবা স্কুলে আসতে মানা করলো তোকে? 

তা করেনি। কিন্তু বাবা সবসময়েই বলেন- একই স্থানে রোজ রোজ গেলে ইজ্জত থাকে না।

তাই...

                                                (৭)
মন্টুর বাপ আর মায়ের ঝগড়া চরম রূপ নিল সেদিন। একপর্যায়ে চিৎকার করে মন্টুর মা বললো: থাকো তুমি তোমার সংসার নিয়া। আমি বাপের বাড়ি চল্লাম!

এই চরম হুমকিতে মন্টুর বাপ ঝগড়া ভুলে অট্টহাসিতে ফেটে পড়লো। অবাক হয়ে মন্টুর মা প্রশ্ন করলো: পাগলা গারদে পাঠাতে হবে তোমাকে? এই কথায় এমন উন্মাদের হাসির কী হলো?

মন্টুর বাপ: তোমার ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হয়েছিল সকালে। সে জানালো তোমার মা-ও আজ ভোরে বাপের বাড়ি গেছেন- স্বামীর সঙ্গে তিনদিন ঝগড়ার পর...

                                               (৮)
ঝন্টু: তোর বাপের বয়স কত বছর রে, দোস্ত?

মন্টু: আমার যা বয়স তাই?

ঝন্টু: পাগল কয় কী! এইটা কীভাবে সম্ভব?

মন্টু: যেদিন আমার জন্ম হলো সেদিনই তো তিনি বাপ হলেন। আর আমিই বাপের প্রথম সন্তান, দোস্ত।


মন্তব্য