kalerkantho


জোকস: ফোন কাটো আর বাস ধরো!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ অক্টোবর, ২০১৭ ২০:১২



জোকস: ফোন কাটো আর বাস ধরো!

                                                (১)
স্বামী-স্ত্রী প্রচণ্ড ঝগড়া চলছে। একপর্যায়ে স্ত্রী মোবাইলে তার মাকে কল দিল: মা মা! আর পারছি না এই সঙ্গে! আমি চলে আসছি তোমাদের কাছে...

মা: খবরদার, তুই আসবি না! তুই থাক! আমি চলে আসিতেছি তোর বাসায়।

এখন থেকে আমি তোদের সঙ্গেস্কাউন্ড্রেলটার ই থাকবো...বজ্জাতটাকে ওর প্রায়শ্চিত্ত করতেই হবে!

                                               (২)
সদ্য প্রাক্তন প্রেমিককে বলছে মেয়ে: আমার বিয়ে আগামীকাল আর আজ গায়ে হলুদ- অথচ কী অদ্ভুত! তুমি আবার এসেছো আমাদের বাসায়? লজ্জা-শরমের মাথা কি পুরোটাই গিলে খেয়েছো?

ছেলে: গায়ে হলুদের ডিজে পার্টির বুকিং আমাদের কোম্পানিকে দেওয়া হয়েছে- সেখান থেকে ডিজে হিসেবে আমাকে পাঠালো। তোমার জন্য রুটি-রুজির পথও ছেড়ে দেব? বল!

                                               (৩) 
কিশোর-তরুণদের জীবন এখন অনেক জটিল। মা হুকুমজারি করেন- রাত দশটার মধ্যে ঘুমিয়ে পড়বি আর ওদিকে গার্লফ্রেন্ড জানায়- ১২টার পর অনলাইনে থাকবো...

                                               (৪)
বেশ ধনী বন্ধুর সঙ্গে অনেককাল পর দেখা মন্টুর বাপের। খোশগল্প চলছে।

ধনী বন্ধু: এ বছর ছুটির প্লান কী তোর? কোথায় যাচ্ছিস নভেম্বর-ডিসেম্বরে?

মন্টুর বাপ: খুব সিম্পল দোস্ত। গত বছর ইউরোপ যাইনি। আর এবার আমেরিকা যাবো না।

                                                (৫)
অ্যাক্সিডেন্টে আহত ব্যক্তিকে কাছের ক্লিনিকে নিয়ে গেল উদ্ধারকারী পথচারীরা।

আহত ব্যক্তি: ডাক্তার সাহেব কিছু করেন তাড়াতাড়ি! পা-টা আমার ভেঙেই দিয়েছে হারামি মহিলাটা...

ডাক্তার পরীক্ষা করে দেখলেন তেমন কিছুই হয়নি কিন্তু রোগী ঘাবড়ে গেছে।

এই সুযোগ কায়দা মতো একটু বাণিজ্য করে নেওয়ার! মুখ গম্ভীর করে বললেন, অবস্থা তো সিরিয়াস! অপারেশন করতেই হবে, ক্রিটিক্যাল সার্জারি, মোটা টাকা যাবে কিন্তু...

আহত ব্যক্তি: আরে টাকার গুষ্টি কিলাই! মাথামোটা বজ্জাত বেটির কোনো দয়ামায়া নাই। ফুটপাতের ওপরে আমার পায়ে তুলে দিল চাকাটা...

এসময় ডাক্তারের ফোন বেজে উঠলো। তার দজ্জাল স্ত্রী ফোন করেছে। একটু দূরে সরে গিয়ে কাঁপা হাতে ফোন ধরলেন তিনি।

ডাক্তার: হ্যালো...

স্ত্রী: আরে রাখ তোর হ্যালো... আমি কী করমু এখন আগে সেইটা ক!

ডাক্তার: কী করেছো তুমি? কী ঘটিয়েছো আবার!

স্ত্রী: আমার গাড়ির নিচে চাপা পড়ে এক লোক মারা গেছে কিছুক্ষণ আগে, ফ্লাইওভারের নিচে...

উত্তেজিত হয়ে ডাক্তার: লোকটার জামা-কাপড়-চেহারার বর্ণনা দাও জলদি!

স্ত্রী: নীল শার্ট, কালো প্যান্ট, পায়ে কেডস ছিল...

ডাক্তার: তাইলে তুমিই মারছো লোকটারে? আহ্‌হা... পুলিশ তো এখন খুনিরে খুঁজতাছে! আমার এইখানেও আসছিল...

স্ত্রী: হায় খোদা! আমি এখন কী করবো? জানু...

ডাক্তার: কী আর করবা! জলদি এখনি গ্রামে তোমার নানীর বাড়ি গিয়ে আত্মগোপন কর। ৬ মাস ফোন বন্ধ রাখ... কোনো যোগাযোগের দরকার নাই...

স্ত্রী: তারপর...

ডাক্তার: তারপর আর কী? আমি এইদিক সামলাইতাছি। তুমি খালি ছয় মাস ফোন দিবা না আমারে বা আমার পরিচিত কাউরে। ব্যবস্থা একটা কইরা ফালামু আমি... আমার জানুরে বাঁচাইতে দরকার পড়ে তো সব সম্পত্তি বেইচা দিমু...

স্ত্রী: জানু... তুমি আমারে এত ভালোবাস? আমি... আমি তোমারে কতো জ্বালাতন...

ডাক্তার: এখন এইসব রাখ! ফোন কাটো আর বাস ধরো। আমার এখানে ফের পুলিশ আইতে পারে...

ডাক্তার ফোন কাটতেই রোগী চিৎকার করে উঠলো: ডাক্তার, এবার কিছু করেন... প্লিজ...

ডাক্তার: আরে বাপ আমার! কিছুই হয় নাই তোমার। এই নাও হাজার টাকা- পাশের দোকান থেইক্যা দুইটা ক্যান নিয়া আস... আগে সেলিব্রেট কইরা নেই দুইজনে।  

রোগী: মানে? 

ডাক্তার: তুমি যা করছো... আমার বাপেও এই কাম করতে পারতো না! 

রোগী: বলছেন কী?

ডাক্তার: আমি ঠিকই বলছি। ভাল কথা- এই নাও আরও ৫ হাজার টাকা। তোমার জন্য নয়া প্যান্ট-শার্টও কিনে আনবে। যাবার আগে তোমার গায়ের এই নীল শার্ট আর কালো প্যান্টটা আমাকে দিয়ে যেও... ওগুলো আমার সারা জীবনের নিরাপত্তা হয়ে থাকবে...


মন্তব্য