kalerkantho


জোক্‌স: পার্টিতে পরার আন্ডারঅয়্যার!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ নভেম্বর, ২০১৭ ১৭:৫৬



জোক্‌স: পার্টিতে পরার আন্ডারঅয়্যার!

(১)
মেয়ের বাপ: আমি চাই না আমার মেয়ে কোনো পাগলের সঙ্গে তার বাকি জীবন কাটাক!

প্রেমিক: সেজন্যই তো তাকে বিয়ে করে যতদ্রুত সম্ভব এই পাগলখানা থেকে নিয়ে যেতে চাই, আঙ্কেল!

(২)
বরফের একটি টুকরো হাতে নিয়ে খুব মনোযোগের সঙ্গে দেখছে মন্টুর বাপ! মন্টুর মা বিষয়টি খেয়াল করছিল অনেকক্ষণ ধরে। শেষে আর না পেরে মুখ খুললো: বরফের দিকে অমনভাবে তাকিয়ে কী খুঁজছো? এটাকে কি হীরা মনে করছো?

মন্টুর বাপ: আরে না...

মন্টুর মা: তবে!

মন্টুর বাপ: বোঝার চেষ্টা করছি এর থেকে পানি লিক করছে ঠিক কোন জায়গাটা থেকে...

(৩)
স্বামী-স্ত্রী দুজনেই অলস স্বাভাবের।

ছুটির দিনে বাসায় অলস সময় কাটাচ্ছে দুজনই। স্বামী মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত আর স্ত্রী টিভির সামনে।  

স্বামী : গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেল; আমাকে এক গ্লাস পানি দাও তাড়াতাড়ি...

স্ত্রী : পনিরের সিঙ্গারা বানিয়েছি, দেব?

স্বামী: আহ! কী শোনালে- একেবারে জিভে পানি এসে গেল!

স্ত্রী: এইবার সেই পানিতে পিপাসা মেটাও। আমি সিরিয়াল ছেড়ে এখন উঠতে পারবো না...

(৪)

আন্ডারঅয়্যার কিনতে গেছে মন্টুর বাপ।  

সেলসম্যান: এই ডিজাইনটা নেন, স্যার! রঙটা চমৎকার আর পরেও আরাম পাবেন।

মন্টুর বাপ: দাম কতো এটার?

সেলস্যান: ছয় শত টাকা, স্যার।

মন্টুর বাপ: পার্টিতে পরার আন্ডারঅয়্যার দরকার নাই আমার, রোজকার ব্যবহারের জন্য কম দামের আন্ডারঅয়্যার দেখাও...

(৫)
গভীর রাত: বাবলা আর ডাবলা নামের দুই মাতাল রেল লাইনের ওপর দিয়ে হেঁটে বাড়ি ফিরছে।  

বাবলা: হায় খোদা! জীবনে এত লম্বা সিঁড়ি আর টপকাইনি। শেষই হচ্ছে না...
ডাবলা: আরে সিঁড়ির কথা বাদ দে! আমি চিন্তা করতেছি রেলিংগুলা এত নিচে দিল ক্যান? কত ঝুঁকতেছি মাগার হাতে নাগালই পাই না!

(৬)
এক অর্থে দেশের সব পরিবারই যৌতুকবিরোধী।

তবে তারা যৌতুক দেওয়ার বিরুদ্ধে, নেওয়ার বিরুদ্ধে নয়- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে


মন্তব্য