kalerkantho


জোকস : বেইজ্জতি আর স্ত্রী দুটোই এক আজব জিনিস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ নভেম্বর, ২০১৭ ১৪:১৬



জোকস : বেইজ্জতি আর স্ত্রী দুটোই এক আজব জিনিস

(১) হানিমুনের সংজ্ঞা : চিরদিনের জন্য জুটে যাওয়া বসের অধীনে কাজ শুরুর আগে একজন পুরুষ মানুষের সর্বশেষ ছুটি উদযাপন।

(২) বিয়ে জিনিসটা আসলে কী- তা বুঝতে একজন চিরকুমার বিজ্ঞানী শেষপর্যন্ত বিয়ে করলেন।

এখন তিনি বুঝতে পারছেন না 'বিজ্ঞান' জিনিসটা আসলে কী?

(৩) এক আমেরিকান দম্পতি এশিয়ায় বেড়াতে এসে সুনামির কবলে পড়ল। সমুদ্রে হারিয়ে গেল স্ত্রী ডেইজি। কয়েকবছর পর ওই সমুদ্রপাড়ে বেড়াতে এলেন বিপত্মীক স্বামী স্টিভ। রাতের অন্ধকারে মাতাল হয়ে সৈকতে দাঁড়িয়ে আছে আমেরিকান, আর একের পর এক ঢেউ এসে তার পায়ে আছরে পড়ছে। হঠাৎ চেঁচিয়ে উঠল স্টিভ: যতই পা ধরিস আর মাফ চাস, আমি গলব না সমুদ্র... এটা তোর দোষ, তুই ওকে টেনে নিয়েছিলি তোর কাছে। এখন ভুগতে থাক শালা... আমি ওকে ফিরিয়ে নেব না!

(৪) ওসি : ক্রেডিট কার্ড হারিয়ে গেছে এটা সঙ্গে সঙ্গে রিপোর্ট করেননি কেন?
মন্টুর বাপ : কার্ডটা চুরি গেছে টের পাওয়ার পর দেখলাম চোর আমার বউয়ের থেকে কম খরচ করছে প্রতিদিন, তাই...
ওসি : তো এখন রিপোর্ট করাতে আসছেন কেন?
মন্টুর বাপ : এখন মনে হচ্ছে কার্ডটা এবার চোরের বউয়ের হাতে পড়েছে- খরচের মাত্রা চারগুণ হয়ে গেছে দুই দিন ধরে...

(৫) ব্যাচেলর অবস্থায় যেদিকে তাকাও দেখবে সুখী দম্পতির ছড়াছড়ি। আর বিয়ের পর চোখে পড়বে সুখী ব্যাচেলরদের আনন্দ উচ্ছ্বাস- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে।

(৬) মহাবিশ্ব সম্পর্কে জ্ঞানদানের ক্ষেত্রে আমার পরিবারের ধারেকাছে নেই নাসা। যেমন, শিশুবেলাতেই মা আমাকে তার ভাই চাঁদের (চাঁদমামার) সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন এবং হরদম চাঁদের টুকরো বলে ঘোষণা করতেন।

এরপর বড় হতেই বাবার এক চড়ে চোখে সর্ষেফুল মানে চাঁদ-তারা সৌরজগৎ সব দেখে ফেলি এক লহমায়। বিয়ের পর তো বউ দিনে-দুপুরে আমাকে তারকা, ধূমকেতু দেখিয়ে ছাড়ছে। সন্তানদের কেউ কেউ তো বড় হয়ে আমাকে ব্ল্যাকহোল ভ্রমণ না করিয়ে ছাড়বে না... এখন এই অপেক্ষায় আছি- মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে।

(৭) স্বামীরা হচ্ছেন সিনেমার মতো। একজন প্রযোজনা করেন আর একজন পরিচালনা করেন। এ ক্ষেত্রে উৎপাদক মানে প্রযোজক হচ্ছেন মা আর পরিচালক হচ্ছেন তার স্ত্রী।

(৮) বেইজ্জতি আর স্ত্রী দুটোই এক আজব জিনিস- অন্যের হলে ভালো লাগে! - মন্টুর বাপের ডায়েরি থেকে।

 


মন্তব্য