kalerkantho


জোকস: এইবার কী বুঝলেন আপনারা?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ মে, ২০১৮ ২০:২৫



জোকস: এইবার কী বুঝলেন আপনারা?

মদ্যপানে আসক্ত পুরো একটি গ্রাম। কোনোমতেই তাদেরকে এর থেকে বার করতে পারছে না কেউ- না সরকার, না কোনো সমাজসেবী সংগঠন। নিজেকে হিরো প্রমাণের চেষ্টায় মন্টুর বাপ একদিন একটি গাধা এবং এলাকার ভালো ছেলেদের একটি দলসহ সেই গ্রামে উপস্থিত হলো।

প্রথমে তারা গ্রামের লোকজনকে মাঠে জড়ো করলো। এরপর মদের ভয়াবহ ক্ষতিরকর দিক বোঝাতে একটি বালতিতে মদ আর দ্বিতীয় বালতিতে পানি রেখে গাধাকে প্রথমে মদের বালতির কাছে নিয়ে গেলো। গাধা একবার শুঁকেই মদের বালতি লাথি মেরে ফেলে দিল, সব মদ মাটিতে গড়িয়ে পড়লো। গ্রামবাসী ‘হায়! হায়!’ করে উঠলো। ওদিকে পানির বালতি শুঁকে গাধা একটানে সব পানি খেয়ে নিল। 

মন্টুর বাপ: এর দ্বারা আপনারা কী বুঝলেন? 

গ্রামবাসী বিজ্ঞের মতো সমস্বরে উত্তর দিলো: যারা গাধা, তারা মদ খায় না। শুধু বুঝদাররাই এর মর্ম বোঝে।

মন্টুর বাপ হতোদ্যম হলো না। তরিকা নম্বর দুই নিয়ে এবার চেষ্টা চালালো। 

এবার এক গ্লাসে মদ আর অপর গ্লাসে পানি নিয়ে একটি টেবিলে রাখা হলো। এরপর একটা পোকাকে পানির গ্লাসে ছেড়ে দিল। পোকা সাঁতার কেটে গ্লাসের বাইরে চলে এলো। এবার ওই একই পোকাকে মদের গ্লাসে ছাড়া হলো। মদের ঝাঁঝ সইতে না পেরে পোকা বেচারা মরে গিয়ে গ্লাসে ভাসতে লাগলো। 

মন্টুর বাপ চোখ বড় বড় করে বললো: এইবার কী বুঝলেন আপনারা? 

গ্রামবাসী খুব সহজ গলায় উত্তর দিল: পেটের ক্ষতিকর পোকা মারার জন্য মদ খাওয়া খুব জরুরি!

মাথা ঘুড়ে মন্টুর বাপ মাটিতে পড়ে গেল...

                                                 (২)

মন্টুর বাপ তখন সদ্য বিয়ে করেছে। হাতে তখনো মেহেদির চিহ্ন। একদিন তুমুল ঝড়-বৃষ্টি-বজ্রপাত হচ্ছে। কিন্তু এমন দুর্যোগেও রাস্তায় দেখা গেল মন্টুর বাপকে। একটা নামী পিজার দোকানে দৌড়ে গিয়ে ঢুকলো ছাতা গুটাতে গুটাতে। 

সেল্‌সম্যান পিজার বক্স তার হাতে দিতে দিতে প্রশ্ন করলো: আপনি বিবাহিত মনে হচ্ছে...

মন্টুর বাপ: নাইলে কুন মা তার ছেলেকে এই কেয়ামতের মধ্যে বাইরে পাঠায়! তাও একটা পিজার লাইগা! কও দেহি মিয়া...

                                                (৩)

একই ক্লাসে পড়ে রেবতী ও দীপক। সহপাঠিনরি প্রতি দুর্বল দীপক, বিষয়টি বুঝে রেবতী মাঝেমধ্যেই মজা নেয় ওর সঙ্গে। একদিন তেমনি মজা নিতে গেল রেবতী-

রেবতী : গতকাল তোমার জন্য আমি রাঁখী নিয়ে এসেছিলাম। তুমি হাতে বাঁধতেই দিলে না! কেন? 
দীপক : সেই ভুল শোধারাতেই তো আজ তোমার জন্য মঙ্গলসূত্র নিয়ে এসেছি। তুমি নিশ্চয়ই না করবে না!

                                                (৪)  
সরি! আপনাকে চাকরি দিতে পারছি না। দেওয়ার মতো কোনো কাজই নেই আমার কাছে।

স্যার, আপনি শুধু আমারে নিয়োগ দেন- কাজ আপনাকে আমি-ই দেব প্রত্যেকদিন। কাজ দিতে দিতে পেরেশান করে মারবো...


মন্তব্য