kalerkantho


কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন দাবি

ঢাবির অনেক বিভাগে ক্লাস পরীক্ষা হয়নি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



ঢাবির অনেক বিভাগে ক্লাস পরীক্ষা হয়নি

সরকারি চাকরিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোটা বাতিল ঘোষণার প্রজ্ঞাপনের দাবিতে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের’ ডাকা অনির্দিষ্টকালের ছাত্র ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশির ভাগ বিভাগেই ক্লাস হয়নি। বেশ কিছু বিভাগের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা থাকলেও হয়নি। কয়েকটি বিভাগে অবশ্য ক্লাস পরীক্ষা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের পরীক্ষা হয়নি। বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের পরীক্ষা দুপুর দেড়টায় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও শিক্ষার্থীরা অংশ নিতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে শিক্ষকরা তাদের সঙ্গে কথা বললে বিকেল সাড়ে ৩টায় পরীক্ষা শুরু হয় বলে জানা গেছে। আইন বিভাগে কোনো ক্লাস হয়নি। তবে ক্লাস পরীক্ষা হয়েছে ইতিহাস, ইসলামিক স্টাডিজ ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের বেশ কয়েকটি বিভাগে।

এদিকে সোমবার রাতে কোটা সংস্কার আন্দোলনের ফেসবুক প্ল্যাটফর্ম গ্রুপ ‘কোটা সংস্কার চাই’ হ্যাক হওয়া নিয়ে তোলপাড় হয়। আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর, রাশেদ খান, ফারুক হোসেন হ্যাকের বিষয়টি নিয়ে গভীর রাত পর্যন্ত গ্রুপটি উদ্ধারে তৎপরতা চালান। পরে বিকল্প হিসেবে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ নামে আলাদা একটি গ্রুপ খোলেন তাঁরা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে গ্রুপটি উদ্ধার করা গেছে বলে আহ্বায়ক হাসান আল মামুন কালের কণ্ঠকে জানান।

এদিকে আন্দোলনকারীদের ফেসবুক গ্রুপের বিকল্প নামটি নিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ‘ছাত্রশিবিরের পরিবর্তিত নাম—বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ বলে ফেসবুকে প্রচারণা চালাচ্ছে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে নুরুল হক নুর ‘কালের কণ্ঠকে’ বলেন, ‘শুরুতেই আমাদের পিছনে কিছু লোক লেগে রয়েছে। তারাই আমাদের বিতর্কিত করতে এমন সব অপপ্রচার করছে। যারা এরকম প্রচার করছে তারা বিকৃত মানসিকতার।’ তিনি বলেন, এ অভিযোগ সত্য নয়। বরং যারা এই অপপ্রচার চালাচ্ছে তাদের মধ্যেই শিবিরের অনুপ্রবেশ ঘটেছে। আমরা দ্রুতই প্রজ্ঞাপন পাব বলে জানতে পেরেছি—এ জন্য কঠোর কর্মসূচিতে যাচ্ছি না।’ 

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে সারা দেশের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস পরীক্ষা বর্জন অব্যাহত রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশির ভাগ বিভাগেই ক্লাস পরীক্ষা হয়নি। তবে পরীক্ষা ধর্মঘটের আওতামুক্ত করার চিন্তাভাবনা রয়েছে। ‘কোটা সংস্কার চাই’ ফেসবুক গ্রুপ সোমবার রাতে হ্যাক হয়েছিল। তবে আমরা তা উদ্ধার করতে পেরেছি। তবে এই অবস্থা থেকে মুক্তির জন্য ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ নামে বিকল্প একটি গ্রুপ খোলা হয়েছে।

ক্লাস পরীক্ষার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আজকেও (মঙ্গলবার) বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস পরীক্ষা স্বাভাবিক ছিল। তবে একটা বিভাগের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দেয়নি, এটা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়।’

 


মন্তব্য