kalerkantho


সবিশেষ

ক্যান্সার রোগীর ইতিবাচক মনোভাব খারাপ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



ক্যান্সার রোগীর ইতিবাচক মনোভাব খারাপ

চিকিৎসাবিজ্ঞানে এ কথা প্রচলিত আছে, যেকোনো অসুখ-বিসুখে রোগীকে মনোবল শক্ত রাখতে হবে। অর্থাত্ ইতিবাচক ও লড়াকু একটা মনোভাবের কথাই বলা হয়। কিন্তু যেসব ক্যান্সার শেষ পর্যায়ে চলে গেছে, অর্থাত্ রোগীর অবস্থা মরণাপন্ন—এমন অবস্থায় লড়াকু মনোভাব হিতে বিপরীত হতে পারে বলে দাবি করেছেন একদল ব্রিটিশ গবেষক। আর এ দাবি তাঁরা করেছেন বিস্তর গবেষণার ভিত্তিতেই।

গবেষণাটি করেছেন যুক্তরাজ্যের দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘ম্যাকমিলান ক্যান্সার সাপোর্ট’-এর একদল গবেষক। গবেষণাটি তাঁরা করেন এমন ক্যান্সার রোগীদের ওপর, যাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাতে দেখা গেছে, ইতিবাচক মনোভাব না দেখালে ২৫ শতাংশ  রোগী অপরাধবোধে ভোগে। কারণ চিকিত্সকরা তাদের সাধারণত ইতিবাচক এবং লড়াকু মনোভাব দেখাতে বলে। আর এটা করতে গিয়েই একজন ক্যান্সার রোগী নিজের সত্যিকারের অনুভূতি ব্যক্ত করতে পারে না। আবার চিকিত্সকরা রোগীর মনোভাব ভেঙে যাবে বলে তাদের মিথ্যা বলেন। এই হার ২৩ শতাংশ।

গবেষকরা বলছেন, এই মিথ্যাচারিতা রোগীর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। কারণ এর মধ্যে দিয়ে সে শরীরের অনেক অনুভূতিই গোপন রাখে। এ ছাড়া মৃত্যুর আগে এই ‘মিথ্যার খেলা’ নৈতিকভাবেও সমর্থনযোগ্য নয় বলে মনে করেন গবেষকরা।

এর আগে প্রায় একই ধরনের একটি গবেষণা করেছে ‘ইউগভ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। তাতে দেখা গেছে, ক্যান্সার আক্রান্ত ৭৬ শতাংশ রোগীই মনে করে, তাদের মৃত্যু হতে যাচ্ছে। তার মানে হলো, চিকিত্সকদের পরামর্শে ইতিবাচক কিংবা লড়াকু মনোভাব দেখাতে গিয়ে ক্যান্সার রোগীদের নিজের ভেতরের সত্যের সঙ্গেই লড়াই করতে হয়। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট।

 


মন্তব্য