kalerkantho


দাঁতের হলুদদাগ দূরীকরণে সহজ উপায়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ২১:১০



দাঁতের হলুদদাগ দূরীকরণে সহজ উপায়

যতোই সুন্দর মুখশ্রীর অধিকারী হোন না কেন দাঁতগুলো হলুদ হলে সব সৌন্দর্য ম্লান হয়ে যাবে, অন্যের বিরক্তি যোগাবে। তাই এ বিষয়ে সচেতন হওয়া জরুরী।   

আপনি ঘরে বসেই কিছু টিপস মেনে চললে হলুদ দাঁতজনিত সমস্যা থেকে রেহা্ই পেতে পারেন। এর ফলে, হলুদ দাগ তো যাবেই, দাঁত হবে ঝকঝকে-উজ্জ্বল।

ধূমপান ত্যাগ করুন :
ধূমপানের কারণে স্বাস্থ্যরে ক্ষতির পাশাপাশি দাঁত হলুদ ও বিবর্ণ হয়ে যায়। তাই, প্রথমেই আপনাকে এই বদঅভ্যাস পরিত্যাগ করতে হবে। এ ছাড়া, অতিরিক্ত কফি পান এবং তামাক পাতা গ্রহণের অভ্যাস বাদ দিতে হবে। 

জাংক ফুড পরিহার :
জাংক ফুড খাওয়ার পরিবর্তে প্র্রচুর ফলমূল ও শাকসবজি গ্রহণ করুন। আপনার খাদ্যতালিকায় আপেল, গাজর, জাম ও বেদনা জাতীয় ফল যুক্ত করুন।

দুগ্ধজাত খাবার :
নিয়মিত দুধ, দুগ্ধজাত খাবার, দধি খেলে মিনারেল ও অ্যানামেলের প্রভাবে দাঁত থাকবে সুন্দর, হলুদ দাগ বা বিবর্ণতার সম্ভাবনা কমে যাবে।আর আপনার হাসিতে মুক্তো ঝরবে, সন্দেহ নেই। 

ইলেকট্রিক টুথব্র্যাশ :
ভালো মানের টুথপেষ্টের সঙ্গে ইলেকট্রিক টুথব্র্যাশ ব্যবহার করতে হবে। এর ফলে, হলুদ দাগ ও ক্ষতিকর 'প্লাক'-র হাত থেকে মুক্ত থাকবেন। মুখ ও দাঁতের স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে। খাবার গ্রহণের পরপরই ভুলেও দেরী না করে ব্রাশ করে ফেলুন। কেননা, খাবার গ্রহণের সাথে সাথেই মুখগহবরে যে এসিড ও সুগার নি:সৃত হয় তা দাঁতের অ্যানামেলকে দূর্বল করে ফেলে। দাঁত ব্রাশের পরে খুব ভালোভাবে কুলকুচি করতে ভুলবেন না যেন। 

নারিকেল তেলে কুলকুচি : 
নারিকেল তেল বা চায়ের নির্যাস দিয়ে কুলকুচি করলে খুব ভালো ফলাফল পাবেন। কেননা, এসব উপাদান আপনার দাঁতকে 'টারটার' ও প্লাক পড়ার হাত থেকে রক্ষা করবে। 'টারটার' ও প্লাকের কারণে দাঁত বিবর্ণ হয়ে যায়। ওই তেল ২ চা-চামচ পরিমাণ মুখে নিয়ে অন্তত ৫ মিনিট  কুলকুচি করুন। আর কুলকুচির পর আধাঘন্টা খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে। প্রতিদিন ২ বার এই প্রক্রিয়া মেনে চলুন।

তুলসি পাতা :
তুলসি পাতার ব্যবহারে দারুন ফল পাবেন।১৫-২০ টি পরিষ্কার তুলশি পাতা দিয়ে টুথপেষ্ট বানিয়ে নিন, নিয়মিত ব্রাশ করুন, দাঁত হবে ঝকঝকে-দাগহীন।    

কাঠকয়লার গুঁড়া :
কাঠকয়লার গুঁড়া ব্রাশে লাগিয়ে প্রতিদিন ২-৩ বার ব্যবহার করলে ভালো ফলদায়ক হবে। আর ক্ষতিগ্রস্ত দাঁতের ওপর একটু ভালোভাবে ব্রাশ করতে হবে।   

 তথ্যসূত্র: ফেমিনা



মন্তব্য