kalerkantho


মমতা ব্যানার্জীর পশ্চিমবঙ্গে ডেঙ্গুকে 'ডেঙ্গু' বলা যাবে না!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ২১:১৫



মমতা ব্যানার্জীর পশ্চিমবঙ্গে ডেঙ্গুকে 'ডেঙ্গু' বলা যাবে না!

ছবি: তসলিমা নাসরিনের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজ

মমতা ব্যানার্জীর পশ্চিমবঙ্গে ডেঙ্গুকে 'ডেঙ্গু' বলা যাবে না!মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বর যে কী ভয়াবহ তা কেবল ঢাকাবাসীই জানেন তা নয়; ঢাকার চেয়েও হয়ত খুব খারাপভাবে জানেন ওপার বাংলাদর মানুষজন! সেখানে ডেঙ্গের প্রাদুর্ভাবের খবর চাপা দিতে মমতা ব্যনার্জী সরকার নানা কূটকৌশলও প্রয়োজ করেছে- এমনি অভিমত সেখানকার মানুষের। প্রখ্যাত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিনের একটি লেখাতেও উঠে এসেছে পশ্চিমবঙ্গের এই অদ্ভুত কাহিনী!

গতকাল শুক্রবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস লিখেন বাংলাদেশ থেকে নির্বাসিত মৌলবাদীদের আক্রোশের শিকার এই লেখিকা।

তিনি লিখেছেন, 'পশ্চিমবঙ্গের হাল দেখে দুঃখ হয় খুব। ডেঙ্গুতে মানুষ মারা যাচ্ছে কিন্তু বলা যাবে না- ডেঙ্গুতে মানুষ মারা যাচ্ছে। ডাক্তারদের কী যে করুণ অবস্থা! আমি তো ওখানকার ডাক্তার হলে চিৎকার করে প্রতিবাদ করতাম, যা হয় হোক। ডেঙ্গুকে ডেঙ্গু বলা যাবে না।  বলতে হবে 'ও কিছু না, একটুখানি জ্বর- মতো'।  

(রোগী) মরেছে কেন? ভেতরে আগে থেকে বড় কোনো অসুখ ছিল, কিডনি নষ্ট ছিল, লাংগস পচা ছিল, হার্টের বারোটা বেজে গিয়েছিল সেকারণে মরেছে। এগুলো বলছে কে? সত্য এমন বেশরমের মতো লুকোচ্ছে কে? মানুষের এত বড় শত্রু কে? কে আর? যিনি মানুষের সেবা করার দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি! স্বয়ং মূখ্যমন্ত্রী!

ডেঙ্গু যেন কারো না হয় সেই ব্যবস্থা করবেন, তখন কী আশ্চর্য; ডেঙ্গুকে দিব্যি এপিডেমিক হতে দিচ্ছেন! আর চারদিকে দৌড়োচ্ছেন আর থ্রেট করছেন, ডেঙ্গুকে ডেঙ্গু না বলে যেন 'ডালভাত' বা 'মিষ্টি কুমড়ো' বলা হয়। তা না হলে তিনি জেলে পুরবেন, চাকরি খাবেন, বেজায়গায় বদলি করবেন।

একশ-দুইশ বছর পর মানুষ জানবে, পশ্চিমবঙ্গে একবার 'ঘোড়ার ডিম' নামের এক রোগ ধরেছিল অনেককে, ওই রোগে মারা গিয়েছিল অসংখ্য মানুষ।

সবসময়ের প্রতিবাদী মুখ তসলিমার এই ফেসবুক স্ট্যাটাস মততা সরকারকে যে অস্বস্তিতে ফেলবে তা বলার প্রয়োজন হয় না।


মন্তব্য