kalerkantho


অশ্লীল প্রস্তাবের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালেন এই সাহসিনী!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ জানুয়ারি, ২০১৮ ১১:৫৯



অশ্লীল প্রস্তাবের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালেন এই সাহসিনী!

হ্যাশ ট্যাগ মি টু। গত বছরের অক্টোবর মাসে সোশ্যাল মিডিয়ায় এই শব্দবন্ধ হয়ে গিয়েছিল এক নীরব বিপ্লবের নাম। সারা পৃথিবীর অসংখ্য মেয়েরা (এমনকী ছেলেরাও) জানিয়েছিলেন, তাঁরা কখনও না কখনও যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছিলেন। নতুন বছরে যেন আবার ফিরে এল সেই সাহসিকতার ছবি। চেন্নাইয়ের নম্য বেইধ নামের এক মহিলা ফেসবুকে ফাঁস করলেন তাঁকে যৌন হেনস্থা করতে চাওয়া ব্যক্তির মুখোশ। সেই পোস্টকে ঘিরে তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া।


আরো পড়ুন:


এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, নম্য একটি চাকরি খুঁজছিলেন। এই অবস্থায় তাঁর এক বন্ধু তাঁর নম্বরটি একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে দিয়ে দেন। সেখান থেকেই নম্বরটি হাতে আসে এক ব্যক্তির। নম্য’র দাবি, ওই ব্যক্তি তাঁকে রীতিমতো যৌন হেনস্থা করেন মিথ্যে চাকরির টোপ ফেলে। যদিও শেষ পর্যন্ত নম্য বুঝতে পারেন সবটাই মিথ্যে। তিনি ওই ব্যক্তির পাতা ফাঁদে পা দেননি।


আরো পড়ুন:


নম্য জানিয়েছেন, তিনি একটি নম্বর থেকে ফোন পান। ফোনের ওপারে কণ্ঠ নিজেকে এয়ার ফ্রান্সের প্রতিনিধি বলে পরিচয় দেন। প্রথমটায় তিনি বুঝতে পারেননি। কিন্তু সামান্য সময় পরেই তাঁর খটকা লাগে। সেই সময় থেকেই তিনি কল রেকর্ড করতে শুরু করেন। প্রথমে ওই ব্যক্তি ওই মহিলার উচ্চতা, ওজন সংক্রান্ত সাধারণ প্রশ্ন করেন। পরে নিজের গলা পালটে অন্য নম্বর থেকে ভিন্ন গলা করে তাঁকে হোয়াটসঅ্যাপে ভিডিও কল করবেন বলে জানান। এই কলটি নেওয়ার সময়ে একটি ফাঁকা ঘরে নম্যকে থাকতে বলেন।

এর পরই দাঁত-নখ বেরিয়ে পড়ে ওই ব্যক্তির। তিনি এর পরই কুপ্রস্তাব দেন নম্যকে। ক্যামেরার সামনে ওই প্রস্তাবে রাজি হওয়ার মতো ভুল মোটেই করেননি নম্য। কারণ ততক্ষণে তিনি বুঝে গিয়েছেন উলটো দিকের মানুষটি একটি পারভার্ট। তিনি কলটি তৎক্ষণাৎ কেটে দেন। এর পরও নম্বর ও গলা পালটে ওই একই ব্যক্তি নিজেকে ভিন্ন মানুষ বলে পরিচয় দিয়ে আবারও যোগাযোগ করতে চান। এর পর হোয়াটসঅ্যাপে ওই ব্যক্তির সঙ্গে উত্তপ্ত কথা বিনিময় নম্যর। তিনি নম্যকে ব্ল্যাকমেল করার চেষ্টা কেরন। কিন্তু নম্য জানান, তিনমি এমন কিছুই করেননি যেটার জন্য কেউ তাঁকে ব্ল্যাকমেল করতে পারেন। পরে নম্য ওই হোয়াটসঅ্যাপের ওই গ্রুপের অ্যাডমিনের কাছ থেকে জানতে পারেন, ওই ব্যক্তি বিবাহিত ও তিনি কেরলের একটি হোটেলের ম্যানেজার। তিনি নতুন চাকরির সন্ধানে ওই গ্রুপে যুক্ত হয়েছিলেন।

নম্য তাঁর পোস্টে সব জানিয়ে লেখেন, আমি জানতাম ওই লোকটা কিছুই করতে পারবে না, কারণ ও আমাকে কল চলাকালীন যে প্রস্তাব দিয়েছিল তার কোনওটাই আমি মেনে চলিনি। এর পর তিনি সমস্ত মেয়েদের উদ্দেশে তিনি জানান, এই ঘটনাকে একটি শিক্ষা হিসেবে নিতে এবং নিরাপদ থাকতে। আপাতত সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় এই ঘটনায়। ওই সাহসিনীর পদক্ষেপের প্রশংসায় সকলে পঞ্চমুখ। যে ভাবে তিনি বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছেন ও ওই ব্যক্তির সব মুখোশ খুলে দিয়েছেন তা দেখে সকলেই মুগ্ধ।

 


মন্তব্য