kalerkantho


এ যেন সত্যিকারের লিলিপুটের গ্রাম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ জানুয়ারি, ২০১৮ ১২:৫০



এ যেন সত্যিকারের লিলিপুটের গ্রাম

ছবি অনলাইন

ইরানের পূর্বাঞ্চলে আজও রয়ে গেছে ক্ষুদে মানুষদের গ্রাম। গ্রামটি যেন বিশ্বখ্যাত লেখক জোনাথন সুইফটের ‘গালিভারস ট্রাভেলস’ বইটির কথাই মনে করে দেয়। গ্রামটির নাম মাখুনিক।

পাহাড়ের আড়ালে অবস্থিত গ্রামটি ১৫শ বছরের পুরনো বলে জানা যায়। এখন থেকে ১০০ বছর আগেও মাখুনিক নামের এ গ্রামের অধিবাসীরা উচ্চতায় মাত্র প্রায় ৩ ফুটের মতো ছিল। ইরানিদের গড় উচ্চতার চেয়ে এরা প্রায় ৫০ সেন্টিমিটার খাটো।

আরো পড়ুন : গালিভার'স ট্রাভেলসে হিব্রু

তবে এটি শুধু একটি গ্রামই নয়, এখানে প্রায় ১৩টি গ্রাম ছিল বলে মনে করছেন গবেষকরা। এ সব গ্রামের অধিবাসীরাই ছিল স্বাভাবিক উচ্চতার চেয়ে অনেক খাটো।

২০০৫ সালে সে অঞ্চলে একটি মমি হয়ে যাওয়া মৃতদেহ পান গবেষকরা। তারা অনুসন্ধান করে দেখেন, সেই দেহটি বেশ খাটো ছিল।

কয়েকটি কারণে গ্রামবাসীদের উচ্চতা কম ছিল বলে মনে করছেন গবেষকরা। তার মধ্যে রয়েছে পারদযুক্ত দূষিত পানি পান, প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর খাবারের অভাব ও নিকটআত্মীয়দের মাঝে বিয়ে, যারা সবাই উচ্চতায় কম ছিল।

আরো পড়ুন : খুদে গ্রাম বেকনসকট

১৯৪৬ সালে গ্রামটির অস্তিত্ব আবিস্কার করা হয়। সে সময় একটি রাস্তাও তৈরি করা হয়। এরপর ক্রমে গ্রামের অবস্থা পাল্টে যায়। বাইরে থেকে বহু মানুষ যেমন গ্রামটিতে আসে তেমন গ্রামবাসীরাও বাইরে চলে যায়। এছাড়া বাইরের মানুষের সংস্পর্শ, পরিবার গঠন ও উন্নত খাবারের প্রভাবে গ্রামের মানুষের উচ্চতাও বাড়তে থাকে।

গ্রামের ছোট ছোট কিছু বাড়িঘর এখনও সেখানে রয়ে গেছে। পর্যটকরা প্রতি বছর সে বাড়িগুলো দেখতে ভিড় করছেন। এছাড়া গ্রামবাসীও বিপুল বিস্ময়ে দেখেন যে, তাদের পূর্বপুরুষ আগে কতটা খাটো ছিল।

সূত্র : বিবিসি



মন্তব্য