kalerkantho


খুঁটে খাই, ভিক্ষা তো করি না!

আসিফ কাজল   

৭ আগস্ট, ২০১৭ ১৩:২৮



খুঁটে খাই, ভিক্ষা তো করি না!

ভূমিষ্ঠ হয়েছিলাম সুস্থ সবল ভাবেই। আঁতুড় ঘরে কিসে যেন কামড় দেয়।

সেখান থেকেই ঠোঁটটি আমার ঝুলে গেছে। এখন খুঁটে (কুড়িয়ে) খাই, ভিক্ষা তো করি না! সারাদিন কাগজ, পরিত্যক্ত বোতল আর পলিথিন কুড়িয়ে যা হয়, তা বিক্রি করে এক দেড় কেজি চাল কিনে ঘরে ফিরি।

ঠোঁট ঝুলে থাকার কারণে অনেকে ভয়ও পায়। কিন্ত কী আর করার আছে? ১৫ বছর আগে ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলাম চিকিৎসার জন্য। ডাক্তার দেখে অপারশেনের কথা বলেছেন। কিন্তু নিজেরই পেট চলে না। অপারেশন করব কী দিয়ে? 

কথাগুলো এক দমে বলে গেলেন ঝিনাইদহ পৌরসভার পবহাটী গ্রামের আব্দুস সালাম। আব্দুস সালামের বয়স ৬০ পেরিয়েছে। স্ত্রী ও এক ছেলে মিন্টুকে নিয়ে তার সংসার।

তিনি জানালেন, আগে বাড়ি ছিল মাগুরার সতিজাতপুর গ্রামে। বিয়ে করে ঘরজামাই হয়ে পবহাটীতেই এখন থিতু। ছেলে মিন্টু ভাজা মুড়ি বিক্রি করেন। বাপ-বেটায় যে ইনকাম তা দিয়ে টেনেটুনে সংসার চলে।  

১৫ বছর আগে চিকিৎসক বলেছিলেন ২০ হাজার টাকা হলেই অপারেশন করে ঠোঁট ভালো করা সম্ভব। এখন তো অনেক দিন হলো। টাকার অভাবে আর যাওয়া হয়নি। দুর্মূল্যের বাজারে হয়তো ৫০ হাজার হলেই আমার ঠোঁটটি স্বাভাবিক হতো।

তার কোনো মোবাইলও নেই। নেই ব্যাংক একাউন্ট। কোনো সহৃদয়বাদ, দানশীল ও দয়ালু ব্যক্তি আব্দুস সালামের ঠোঁট চিকিৎসায় সাহায্য করতে চাইলে ফেসবুকে ইনবক্স করে জানাতে পারেন https://www.facebook.com/kazalbtv? অথবা আমার সেল নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন: ০১৮১৮ ৭২৭৬৫২

আসিফ কাজল : ঝিনাইদহবাসী সাংবাদিক


মন্তব্য