kalerkantho


আমরা ইমোশনাল... প্রচণ্ড ইমোশনাল!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ জুন, ২০১৮ ১৭:২৩



আমরা ইমোশনাল... প্রচণ্ড ইমোশনাল!

নেত্রকোনায়, আজ থেকে ২০ বছর আগে রবিউল নামের একজন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো যে আর্জেন্টিনা কাপ না পেলে, তিনি বিয়ে করবেন না।

গতপরশু ফ্যামিলির সামনে প্রচণ্ড লাজুক লাজুক চেহারা নিয়ে তিনি খেলা দেখেছেন।

ফলাফল তো জানিই।

এ বছরও তার বিয়ে হওয়ার সম্ভাবনা খুব একটা দেখছি না ...

গত সপ্তাহে, গোপালগঞ্জে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের মারামারিতে ৮ জন আহত।

নর্মাল শার্টের কলার ধরে কিল-ঘুসি টাইপ মারামারি না... বর্শা তীর ধনুক নিয়ে রীতিমতো চর দখল টাইপ মারামারি

ক্রোয়েশিয়া হাসি মুখে বাসায় ফিরছে... আর আমরা বেক্কলরা ফিরছি, মাথায় ব্যান্ডেজ নিয়ে।

মনে আছে গতবার ব্রাজিল সেমিফাইনালে ৭টা গোল খাওয়ার পর, ভৈরবে একজন ৭টা ঘুমের ট্যাবলেট খেয়ে ফেলেছিলো।

আপনাদের দোয়ায়, সে এখন সুস্থ।

বুঝলাম না তুই কোন হিসেবে ৭টা খেলি? না পারলি মরতে, না পারলি জিততে।

তার মানে তোর মরার আশা ফুলফিল করতে হলে তোর দলকে আরও বেশি গোল খেতে হতো?

তা না হলে আমারে বল তুই আল্লাদি করে ৭টা খাইসস কেন? ৭ এর হিসাব মিলাইতে চাইলে, একপাতা ওষুধের ৭টা রেখে, বাকিগুলো খেয়ে ফেলতি... তুইও তো জানস ৭টা ট্যাবলেট খেলে কিছুই হবে না... তোর ভুইত্তামারা ভাতে ভরা ভুঁড়ির এক কোণায় সেগুলো পরে থাকবে।

... খেয়েছে কারণ; আমরা ইমোশনাল... প্রচণ্ড ইমোশনাল

এটা অবশ্যই একটা ভালো দিক ...

কিন্তু সমস্যা হলো, আমরা ইমোশনের প্রায়োরিটি লিস্ট করতে পারি না।

দেশে, আপনার পাশের বাসার মানুষ না খেয়ে আছে, আপনি দৌড়ে দৌড়ে খুঁজছেন প্যালেস্টাইনে কিভাবে বিকাশ করা যায়।

বলছি না... আপনি ভুল জায়গায় ইমোশান দেখাচ্ছেন; বলছি যে, ‘এটা’ হয়তো আপনার ইমোশানের প্রায়োরিটি লিস্টে ৩/৪ নম্বরে থাকবে।

আবার হয়ত যখন নামাজে বসবেন, তখন দোয়ায় পেলেস্টাইন থাকবে আপনার প্রায়োরিটি লিস্টের প্রথমের দিকে... আর্জেন্টিনা যেনও ৭টা গোল না খায়, এই দোয়া থাকবে অনেকক পরের দিকে।

সমস্যা হলো, আমরা যেকোনো কাজেরই প্রায়োরিটি লিস্ট বানাতে শিখিনি।

গতকাল পত্রিকায় দেখলাম; মাগুরার একজন কৃষক জমি বিক্রি করে জার্মানির ৫ কিমি লম্বা পতাকা বানিয়েছে।

অবশ্যই জমি বিক্রি করে পতাকা বানানোটা তার প্রায়োরিটি লিস্টের প্রথমে থাকার কথা না... প্রথমে থাকার থাকার কথা ছিলো; তার পরিবারের ভরন-পোষণ, প্রতিবেশীর প্রতি কর্তব্য ... ইত্যাদি ইত্যাদি।

... এসব কিছু হয়ে গেলে, তারপর পতাকা বানাবি নাকি তোর জমির কাদামাটি দিয়ে হিটলারের মূর্তি বানাবি তোর ব্যাপার... কিন্তু প্রথম দিকের প্রায়োরিটিগুলো, স্কিপ করে তো না।

আমরা ইমোশনাল... প্রচণ্ড ইমোশনাল ...

ইমোশানটা বেঁচে থাকুক... শুধু ... শুধু আমাদের প্রায়োরিটি লিস্ট করার ক্ষমতাটা আসুক, তাহলেই হয়।

গতকাল বাড্ডায় ব্রাজিলের পতাকা লাগানো এক বাসের হেল্পার, রাস্তা থেকে জার্মানের জার্সি পরা এক বাস আরোহীকে বাসে উঠতে দেয়নি... ‘খবরদার তুই উঠবি না, তুই উঠবি না’ বলে ঠেলে নামিয়ে দিয়েছে।

বেচারা ঠ্যালা খেয়ে নামতে নামতে কি বলেছে জানেন?

‘কাফরুল আইস, পুইতা ফেলামু’

জি ঠিক শুনেছেন, “সে জার্মান আইস পুইতা ফেলামু বলেনি... বলেছে কাফরুল আইস”

পার্থক্যটা ধরতে পারছেন?

আরিফ আর হোসাইনের ফেসবুক থেকে

 

(নাগরিক মন্তব্য বিভাগে প্রকাশিত লেখা ও মন্তব্যের দায় একান্তই সংশ্লিষ্ট লেখক বা মন্তব্যকারীর, কালের কণ্ঠ কর্তৃপক্ষ এজন্য কোনোভাবেই দায়ী নন।)



মন্তব্য