kalerkantho


ভাবী মানেই ভারী না হে জনাবেরা!

রুম্পা সাইয়েদা টাইগার জামান   

৯ জুলাই, ২০১৮ ২০:৩৩



ভাবী মানেই ভারী না হে জনাবেরা!

প্রতীকি চিত্র

‘শুকালে যেকোনও পোশাকে দেখতে ভালো লাগে!’

না জনাব এটা আমার কথা না। এটা আপামর জনসাধারণের কথা! বডি শেমিং-এর প্যাঁচে পড়ে আজকাল অনেকেই মুখের ওপর ‘এ মা! মোটা হয়ে গেলে কী করে’ বলতে না পারলেও ইনিয়ে বিনিয়ে মোটা হওয়ার মাশুল ঠিকই গণনা করেন। 

আসলেই কি ব্যাপারটা মোটা-শুকনার মাঝে নিহিত? অবশ্যই ফিট থাকাটা জরুরি- এবং শরীরে বাড়তি মেদও থাকা খুবই বিপদজনক। কিন্তু ধরেন, যার গড়ণটাই আপনাদের ভাষায় ‘গাদুম-গুদুম’, তারা কী করে ‘সমাজের চোখে শুকনো হবেন, বলুন!’ 

পোশাকে সুন্দর দেখাতে হবে এই টেনশনে জাতি খাওয়া ছেড়ে দেয়। এবং পেটে কিঞ্চিৎ বিদ্যা আছে বলে জানি, খাদ্যের ছয়টি উপাদানও নির্দিষ্ট পরিমাণে প্রয়োজন শরীরের বিভিন্ন ম্যাকানিজমে। বিশেষ করে তিরিশের পর, এবং বিশেষত এই সাবকন্টিনেন্টে! এইসবের তোয়াক্কা না করে কিটি-জিএম-পিএম কি সব করে বেড়াচ্ছে লোকে শুধু পোশাকে ভালো দেখানোর জন্য! 

তাহলে বাপু কেন কষ্ট করে ছয় বছর ব্যয় করে পুষ্টিবিদ হওয়া! গুগুল যদি সবই জানতো তাহলে তো পড়ালেখার পাটটাই চুকে যেত! 

এবার আসি মানসিক ব্যাপারটাতে! এই যে সবার এতো জ্ঞান- অতীশ আর অতিশী, আপনাদের ধারণাও নেই এই ছোট্ট একটি লাইন কিভাবে মানুষের ওপর প্রভাব বিস্তার করে। মনে আছে ওয়েকআপ সিডের সেই বন্ধুটির কথা- যে কিনা বলতো, ‘আমার জীবনের সবচেয়ে বড় দুঃখ-সকালে ডায়েট শুরু কেরি, বিকেলে তা শেষ!’ 

এর মানে হলো- বিষয়টা হেসে উড়িয়ে দিলেও কোনও না কোনোভাবে মনের গহিন কোণে ধারালো কোপ আর ক্ষতটা থেকেই যায়! কত মেয়ে নিজেকে এজন্য আপনার এবং সমাজের চোখে অযোগ্য মনে করেন জানেন? তাদের খবর কে রাখে! 

এক কালে আমি যখন শ-কেজির অধিক ছিলাম, তখন থেকেই এসব জানি। আমার নাম ছিল- মোটি, মটু, ভোটা ইত্যাদি! মজার, না? আপনাদের বন্ধুদের মধ্যেই এমন ‘হোঁদল’ আছে! আর ভাবছেন ‘কই! ওরা তো কুল- কিছু মনে করে না!’ আরে গবেট- যার অতি কষ্টে মোটা হওয়া সত্বেও দুটো বন্ধু হয়েছে, সে কী এই মোটাত্বের কারণে সেই বন্ধুও হারাবে? তাহলে তাকে কে খেলায় নেবে?

তাহলে উপায়? মোটাই থাকবো! তা কেন! অবশ্যই ফিট থাকার জন্য যা দরকার তা প্রপার ওয়েতে করতে হবে! আর কেউ ব্যর্থ হলে তাকে মানসিক চাপ না দিলেই উত্তম! আবার এটাও ঠিক- সব জিরোকে হিরো লাগে না বৈকি! নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপনের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হলো তার ব্যক্তিত্ব! দেখুন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্টকে! চওড়া একটা মানুষ!

আর আমরা কিনা বিজ্ঞাপন থেকে নাটকে মোটা মানেই বোকা, ভাঁড়, না হলে পাশের বাড়ির ভাবী হিসেবে মানুষগুলোকে আরও ক্যাটাগোরাইজড করছি! রসিক মানেই ভাঁড় না, সহজ মানে বোকা না এবং ভাবী মানেই ভারী না হে জনাবেরা! 

আর আপনি কি না হচ্ছেন মহৎ - শুধু অতটুকু মেদের বিচারে?

সবকিছু বাদে মানসিক স্বাস্থ্যর কথা ভেবে আরেকটু কথাবার্তায় সতর্কতা জরুরি! কারণ, এই বডি শেমিং এখন অনলাইন এবং অফলাইনে বেশ আছে কিন্তু।

দিতে হলে সঠিক পরামর্শ দিন, প্রয়োজনে পুষ্টিবিদের কাছে চলে যান। তা না হলে কারে কিসে ভালো লাগে সেটা সবাই জানে! আয়না হয়েন না- সে শুধু নিজেই... 

আর বাই দ্যা ওয়ে, যখন শুকনা ছিলাম তখন কী নোবেল দিয়েছিলেন যে মোটা হওয়ায় পুরস্কার ফেরত নিতে হবে?

 রুম্পা সাইেয়দা টাইগার জামান: সংবাদকর্মী, লেখক

[নাগরিক মন্তব্য বিভাগে প্রকাশিত লেখা ও মন্তব্যের দায় একান্তই সংশ্লিষ্ট লেখক বা মন্তব্যকারীর, কালের কণ্ঠ কর্তৃপক্ষ এজন্য কোনোভাবেই দায়ী নন।]



মন্তব্য