kalerkantho


ঢাকা সিটির নির্বাচনে খালেদার প্রচারে বাধা নেই : সিইসি

বিশেষ প্রতিনিধি   

১০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০২:২৯



ঢাকা সিটির নির্বাচনে খালেদার প্রচারে বাধা নেই : সিইসি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। ফাইল ছবি

দলীয় প্রতীকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপনির্বাচনে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রচারণায় অংশ নিতে আইনি কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। আড়াই বছর আগে ঢাকা সিটির নির্বাচনের সময় খালেদা জিয়ার নির্বাচনী প্রচারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল। এবারও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হবে কি না- সাংবাদিকদের এমন  প্রশ্নের জবাবে গতকাল মঙ্গলবার সিইসি  বলেন, 'প্রতিবন্ধকতার প্রশ্নই ওঠে না। উনি (খালেদা জিয়া) বা উনার মতো কেউ প্রচারে গেলে কোনো বাধা দেওয়া হবে না। আমাদের পক্ষ থেকে কোনো বাধা নেই।'

ইসি সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও জানান, 'সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণ বিধিমালা' অনুসারে সরকারের কোনো মন্ত্রী, উপমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা তাঁদের সমমর্যাদায় সরকারি সুবিধাভোগী কোনো ব্যক্তি অংশ নিতে পারবেন না। জাতীয় সংসদের স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, চিফ হুইপ এবং হুইপ এই নিষেধের তালিকায় রয়েছেন। এ তালিকার বাইরে যাঁরা রয়েছেন তাঁদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে কোনো বাধা নেই।

কিন্তু কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের নেত্বতাধীন আগের নির্বাচন কমিশন ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ঢাকার দুই সিটির নির্বাচনকে সামনে রেখে খালেদা জিয়ার প্রচারণা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে ডিএমপি ও ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্দেশ দেয়। তার আগে সিইসি কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সঙ্গে দেখা করে আওয়ামী লীগ সমর্থিত 'সহস্র নাগরিক কমিটি'র একটি প্রতিনিধিদল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘন, ভোটাধিকার হরনের ষড়যন্ত্র ও শানি্তপূর্ণ পরিবেশে বিঘ্ন ঘটানোর অভিযোগ এনে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি জানায়।

সে সময় নির্বাচন কমিশন জানিয়েছিল, খালেদা জিয়া যেভাবে প্রচারণা চালিয়েছেন তা নির্বাচনী আচরণ বিধির লঙ্ঘন। তিনি গাড়ির বহর নিয়ে নিজ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালানোর সময় জনগণের চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়েছে, যা নির্বাচনী আচরণবিধির পরিপন্থী।

ওই সময় নিজ দল সমর্থিত মেয়র পদপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও মির্জা আব্বাসের পক্ষে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির বিভিন্ন এলাকায় পাঁচ দিন প্রচারণা চালিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। এর মধ্যে চার দিন ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা তাঁর প্রচারণায় বাধা দেয় বলে অভিযোগ ওঠে। খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে কয়েক দফায় হামলার ঘটনাও ঘটে। এর মধ্যে কারওয়ান বাজারে খালেদা জিয়ার ওপর হামলার ঘটনায় তেজগাঁও থানায় উভয় পক্ষ মামলা করে।


মন্তব্য