kalerkantho


সংসদে মন্ত্রী

প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নেওয়া হবে ১৫ সীমান্ত নদীর ৭৮ স্থানে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:৩৩



প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নেওয়া হবে ১৫ সীমান্ত নদীর ৭৮ স্থানে

উজানের দেশগুলো থেকে বাংলাদেশে মোট ৫৭টি নদী প্রবাহিত হচ্ছে। এর মধ্যে ৫৪টি ভারত থেকে এবং ৩টি নদী মিয়ানমার থেকে এ দেশে প্রবেশ করেছে। এসব নদীর অধিকাংশই নাব্যতা হারিয়েছে, যা খননের কাজ হাতে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া দেশের ১৫টি সীমান্ত নদীর ৭৮টি স্থানে প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে এতথ্য জানান পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম। সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ভারত থেকে এ দেশে প্রবাহিত নদী গুলোর মধ্যে রয়েছে- রায়মঙ্গল নদী, ইছামতি কালিন্দী নদী, বেতনা কোদালিয়া নদী, ভৈরব কপোতাক্ষ নদী, মাথাভাঙা নদী, গঙ্গা, পাগলা, আত্রাই, পুনর্ভবা, তেঁতুলিয়া, ট্যাংগন, কুলীক, নাগর, মহানন্দা, ডাহুক, করতোয়া, তালমা, ঘোড়ামারা, দেওনাই-যমুনেশ্বরী, বুড়ি-তিস্তা, তিস্তা, ধরলা, দুধকুমার, ব্রম্ভপুত্র নদ, জিঞ্জিরাম, চিলাখালি, ভোগাই, নিতাই, জালুখালি-দামালিয়া, নয়াগাং, উমিয়াম, ধলা, পিয়াইন, সারি গোয়াইন, সুরমা, কুশিয়ারা, সোনাই বরদল, জুরী, মনু, ধলাই, লংলা, খোয়াই, সুতাং, সোনাই, হাওরা, বিজনী, সালদা, গোমতী কাকরী-ডাকাতিয়া সেলোনিয়া, মুহুরী, সুমেশ্বরী, যাদুকাটা এবং ফেনী নদী। এ ছাড়া মিয়ানমার থেকে যে ৩টি নদী প্রবাহিত হচ্ছে- সাঙ্গু, মাতামুহুরী এবং নাফ নদী।

সংসদে প্রতিমন্ত্রী জানান, এসব নদীর অনেকগুলোর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। ক্যাপিটাল ড্রেজিং অব রিভার সিস্টেম ইন বাংলাদেশ' শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় যমুনা নদীর ২২ কিলোমিটার ড্রেজিং করতে ৯৯৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে। এ ছাড়া সীমান্ত নদী তীর সংরক্ষণ ও উন্নয়ন প্রকল্পের (২য় পর্যায়) একনেকে গৃহিত হয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় ১৫টি সীমান্ত নদীর ৩৪ দশমিক ৬০৯ কিলোমিটার ব্যাপী ৭৮টি স্থানে প্রতিরক্ষামূলক কাজের সংস্থান রয়েছে। যা দেশের ১২টি জেলার ২২টি উপজেলায় বাস্তবায়িত হবে। মোট ৪৪৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে এ কাজটি তাড়াতাড়ি শুরু হবে।


মন্তব্য