kalerkantho


আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের অনিয়ম তদন্ত নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ২২:৫৬



আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের অনিয়ম তদন্ত নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে ক্ষোভ

বাংলাদেশের উপকূলীয় ঘূর্ণিঝড় প্রবণ এলাকায় সাইক্লোন ও ফ্লাড সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের কাজের অনিয়ম তদন্তের মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংসদীয় কমিটির সদস্যরা। এ ব্যাপারে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের তদন্ত নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়। পরে এই প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজে সাইক্লোন প্রবণ এলাকাগুলো অগ্রাধিকার দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

আজ রবিবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই সুপারিশ করা হয়। কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে কমিটির সদস্য বিএম মোজাম্মেল হক, বেগম মমতাজ বেগম, আবদুর রহমান বদি, মো. শফিকুল ইসলাম শিমুল ও এসএম জগলুল হায়দার এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কমিটি সূত্র জানায়, বৈঠকে কমিটির সদস্য আবদুর রহমান বদি ও নাটোরের এমপি মো. শফিকুল ইসলাম শিমুল সাইক্লোন ও ফ্লাড সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পের কাজের মানের ব্যাপারে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। শিমুল অভিযোগ করেন, এ প্রকল্পের কাজ নিয়ে যেসব অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে মন্ত্রণালয় সেগুলো ঠিক মতো তদন্ত করছে না। এ সময় আবদুর রহমান বদি জানান, তার এলাকার সাইক্লোন ও ফ্লাড সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পের কাজের অনিয়ম তদন্তকারীরা কক্সবাজার না গিয়ে চট্টগ্রাম থেকেই ঢাকা ফিরে গেছেন। কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুসহ অন্যান্য সদস্যরাও এ নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন।

বৈঠকে মন্ত্রণালয় জানায়, সাইক্লোন ও ফ্লাড সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের আওতায় নির্মিত ১০০ আশ্রয়কেন্দ্রের কোনোটিতে এখনো সোলার প্যানেল স্থাপন করা হয়নি। সংযোগ সড়কও নেই ৮০টি আশ্রয় কেন্দ্রের। এর আগের বৈঠকে সচিব বলেছিলেন, সাইক্লোন ও ফ্লাড সেল্টার নির্মাণ প্রকল্পের কাজ তিনি নিজেই তদারকি করবেন। প্রকল্প পরিচালকসহ অন্যান্যদের কোনো অবহেলা থাকলে তাও তদন্ত করে দেখা হবে।

বৈঠকে ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্পের অনিয়ম-দুর্নীতি সংক্রান্ত অভিযোগ সম্পর্কে তদন্ত করে এক মাসের মধ্যে মন্ত্রণালয়কে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে তদারকি বৃদ্ধিরও তাগাদা হয়। কমিটি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের বিভিন্ন অফিসের ২য়, ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির জনবল নিয়োগের জটিলতা নিরসনের তাগিদ দিয়েছে। এ ছাড়া সোলার সিস্টেম কার্যক্রম দ্রুত বাস্তবায়নের সুপারিশ করেছে।

কমিটির নভেম্বরের বৈঠকে পাহাড় ধ্বসের কারণ অনুসন্ধান ও সরেজমিনে পরিদর্শনের জন্য তালুকদার আব্দুল খালেককে আহবায়ক করে গঠিত সাব-কমিটিতে আরো তিনজন সদস্যকে সংযুক্ত করা হয়েছে।  এরা হলেন- মো. শফিকুল ইসলাম শিমুল, সৈয়দ আবু হোসেন এবং বেগম হেপী বড়াল।


মন্তব্য